বাজপেয়ী বাংলাদেশের মহান বন্ধু ছিলেন: শেখ হাসিনা     ট্রেনে ঈদযাত্রা শুরু     কোটা আন্দোলনের নেত্রী লুমা রিমান্ডে     বার্নিকাটের গাড়ি বহরে হামলার ঘটনায় ব্যবস্থা নেওয়া হবে     এলিফ্যান্ট রোডে বাসা থেকে ২ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার, গ্রেফতার ৬     সমকাল সম্পাদক গোলাম সারোয়ারের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন     দুই দিনের সেলিম আল দীন জন্মোৎসব     শিল্প এলাকায় শনিবার ব্যাংক খোলা    

প্রসিদ্ধ সব খিচুড়ির বাহার

  জুন ০৭, ২০১৮     ৮২     ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন     বিনোদন
--

লাইফস্টাইল ডেস্ক : খিচুড়ি ভালোবাসেন না এমন মানুষ কমই আছেন। সুস্বাদু গরম গরম খিচুড়ির স্বাদই আলাদা। ইফতারে তাই অনেকেরই প্রিয় খাবার এই খিচুড়ি।

খাবারটি খেতে যেমন ভালো লাগে তেমনি পুষ্টিগুণেও ভরা। রোজার এ সময়টাতে ইফতারের আইটেম বানাতে গিয়ে অনেক রেস্টুরেন্ট খিচুড়ি রান্না না করলেও খাবারটির জন্য যারা প্রসিদ্ধ তারা ঠিকই বিক্রি করছেন এবং সেখানে ক্রেতাদের ভিড়ও প্রচুর।

রাজধানীর এ সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় খিচুড়ি তৈরি হয় গুলশান প্লাজা রেস্তোরাঁয়- যেটি জিপিআর নামেও পরিচিত। ওয়েস্টিন হোটেলের উল্টো দিকে অবস্থিত এ রেস্তোরাঁ শুধু খিচুড়ি নয় রাজধানীর মানুষদের এক প্রিয় জায়গাও বলা চলে।

খাওয়ার পাশাপাশি চলে আড্ডা। এখানে এলে দেশের বিভিন্ন অঙ্গনের তারকাদেরও খুঁজে পাওয়া যায়। আর বিকাল থেকে শুরু করে অনেক রাত পর্যন্ত খোলা থাকে বলে হাতে সময় নিয়েও চলে আসা যায়। এখানে মুরগি ও খাসির মাংসের খিচুড়ি পাওয়া যায়। সঙ্গে থাকে সেদ্ধ ডিম ও আচার।
মুরগির খিচুড়ি হাফ প্লেটের দাম পড়ে ১৮০ টাকা এবং ফুল প্লেট ২৮০ টাকা। খাসির খিচুড়ির দাম হাফ প্লেট ২০০ এবং ফুল প্লেট ৪০০ টাকা। ইফতারের সময় বসে খাওয়ার পাশাপাশি পার্সেলেরও সুব্যবস্থা আছে।

রাজধানীর আরেক জনপ্রিয় খিচুড়ি পাওয়া যায় মতিঝিলের হিরাঝিল রেস্তোরাঁয়। এখানকার খিচুড়ি অতি সুস্বাদু। খাসির হাফ প্লেট খিচুড়ির দাম পড়ে ১৮০ টাকা। চাইলে এক দিন আগে অর্ডার করেও ইফতার পার্টির জন্য খিচুড়ি নেয়া যায়। ইফতারের জন্য এখানে সাড়ে ৩টার পর থেকে খিচুড়ি বিক্রি শুরু হয়। মতিঝিলের এক প্রাইভেট ব্যাংকের কর্মকর্তা মাহিদুল ইসলাম বলেন, রোজার সময় ব্যাংকে কাজের চাপ থাকে বেশি। তাই অনেক সময়ই ইফতার অফিসে করতে হয়। শুধু আমি নই এখানকার অনেক প্রাইভেট ব্যাংকেই এখন এ অবস্থা। গুণগত মান ও স্বাদের দিক থেকে হিরাঝিলের খিচুড়ি বেশ সুস্বাদু বলে প্রায়শই খাওয়া হয়।

খুব বেশি সময় না হলেও জনপ্রিয়তা পেয়েছে এ ভোজের খিচুড়ি। সেগুনবাগিচার ভোজে মুরগি ও গরুর খিচুড়ি কিনতে পাওয়া যায়। মুরগির খিচুড়ির দাম পড়ে প্রতি প্লেট ২০০ টাকা এবং গরুর খিচুড়ি প্রতি প্লেটের দাম রাখা হচ্ছে ২৪০ টাকা। পরিষ্কার পরিছন্ন ও আরামদায়ক পরিবেশে ইফতারিতে খিচুড়ি খাওয়ার সুবিধা আছে। এ ছাড়াও এলিফ্যান্ট রোডের মালঞ্চতে সুস্বাদু খিচুড়ি পাওয়া যাচ্ছে। তোপখানা রোডের বৈশাখীর খিচুড়িও বেশ সুস্বাদু। তাদের খাসির খিচুড়ির দাম প্রতি প্লেট ১৬০ টাকা। রাজধানীর অন্যান্য এলাকাতেও কম-বেশি খিচুড়ি কিনতে পাওয়া যাচ্ছে। তবে যেখান থেকেই কেনা হোক না কেন স্বাস্থ্যসম্মতভাবে রান্না ও পরিবেশন করা হচ্ছে কিনা তা দেখে কেনা উচিত।

উত্তরণবার্তা/এআর



ট্রেনে ঈদযাত্রা শুরু

  আগস্ট ১৭, ২০১৮

যমজ লাল্টু-পল্টুর দাম ২০ লাখ

  আগস্ট ১২, ২০১৮     ৪৩৬১

রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের সূচি

  জুন ০৬, ২০১৮     ৪০৯১

পুরনো খবর