প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর থেকে     যাত্রীসেবার মানোন্নয়নের মাধ্যমে বিমানের সুনাম বৃদ্ধি করুন : প্রধানমন্ত্রী     পিলখানা বিদ্রোহের সময় খালেদা জিয়া ২৪ ঘণ্টা কোথায় ছিলেন     ২১ আগস্ট নিয়ে উপহাসকারী রিজভীদেরও বিচার হওয়া উচিত: তথ্যমন্ত্রী     ব্রাজিলের আমদানি শুল্ক আরো সহনীয় পর্যায়ে আনার আহ্বান বাণিজ্যমন্ত্রীর     তরুণদের কর্মক্ষমতাকে কাজে লাগানোর কর্মপরিকল্পনা গ্রহন করতে হবে : স্পিকার     ময়মনসিংহের ১৫ জনের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধে তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ     উদ্ভাবনী চিন্তাভাবনার মাধ্যমে জনসেবা নিশ্চিত করতে হবে : এলজিআরডি মন্ত্রী    

বর্ষার পর দৃশ্যমান হবে চট্টগ্রামের সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স

  আগস্ট ১৩, ২০১৯     ১৪     ১২:০৬ অপরাহ্ণ     আরও
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : বর্ষা মৌসুম শেষে ক্রমে দৃশ্যমান হবে চট্টগ্রাম মুসলিম ইনস্টিটিউট সাংস্কৃতিক কমপ্লেক্স। পুরোনো বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার ভবন, মুসলিম ইনস্টিটিউট ভবন ভাঙা, ইউটিলিটি লাইন অপসারণ, চূড়ান্ত নকশা অনুমোদনসহ নানান জটিলতায় খুব বেশি এগোয়নি প্রকল্পের কাজ।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে গণগ্রন্থাগার অধিদফতর, গণপূর্ত অধিদফতর ও স্থাপত্য অধিদফতর প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে। ২০১৭ সালের নভেম্বরে প্রকল্পটি একনেকে পাস হয়। ২৩২ কোটি ৫২ লাখ টাকার এ প্রকল্পে প্রথম পর্যায়ে ১৬৫ কোটি ৯০ লাখ টাকা চুক্তিমূল্যে কাজ করছে জিকেবি অ্যান্ড কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড ও এনডিই ন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট ইঞ্জিনিয়ার্স লিমিটেড (জেভি)।

প্রকল্পের অধীনে এক লাখ ৩৭ হাজার ৮০০ বর্গফুটের ১৫ তলা লাইব্রেরি ভবন, ৭৭ হাজার ৪৯২ বর্গফুটের আট তলা অডিটোরিয়াম, ৬৫ হাজার বর্গফুটের বেসমেন্টসহ ১১২টি গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা, নতুন শহীদ মিনার তৈরি, মূল সড়কের ওপর শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে মানুষের যাতায়াতের জন্য টানেলের মতো ওভারপাস তৈরি, ১ লাখ ৩১ হাজার ২৭৫ বর্গফুট জুড়ে পাবলিক প্লাজা, ২৫০ জনের ওপেন এয়ার থিয়েটার, মসজিদ, মার্কেট, পুকুর, ল্যান্ডস্কেপ, ফুড গার্ডেন, ক্যাফেটেরিয়া, মিউজিয়াম নির্মাণ করা হবে।

এ প্রকল্পে ১০০ জনের জন্য একটি, ২০০ জনের জন্য একটি সেমিনার হল এবং ৩৫০ জন ও ৭৮০ জন ধারণক্ষমতার ২টি থিয়েটার হল থাকবে। এ ছাড়া সেমিনার ও মিটিং রুম, জেনারেল লাইব্রেরি, চিলড্রেন’স লাইব্রেরি, নিউজপেপার লাইব্রেরি, রেফারেন্স লাইব্রেরি, সায়েন্স লাইব্রেরি, ট্রেনিং ইউনিট, আইসিটি ইউনিট, গেস্ট হাউস থাকবে।

নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের লক্ষ্যে ২টি ১২৫০ কেভি সাব স্টেশন, ২৫০ কেভিএ’র ২টি জেনারেটর থাকবে। আটটি লিফট ও ৯৭৩ টন এয়ারকুলারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে মূল পরিকল্পনায়।

২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে কাজ শুরু হওয়া প্রকল্পের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২০২০ সালের ৩০ ডিসেম্বর। যদিও পুরোনো বিভাগীয় সরকারি গণগ্রন্থাগার ভবন ভাঙার কাজ শুরু হয় ২০১৯ সালের ১ এপ্রিল। শেষ হয় গত ২ জুলাই।

প্রকল্পে ২ ফুট ব্যাসের ৪৮ ফুট লম্বা মোট শোর পাইল করা হচ্ছে ৫৭৬টি। ইতোমধ্যে ৩০০ শোর পাইল ড্রাইভ হয়ে গেছে। ১৪ বাই ১৪ ইঞ্চির ৫৮ ফুট দীর্ঘ সার্ভিস পাইল হবে ১ হাজার ৩৪৭টি।

ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের প্রকল্প পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম জানান, নতুন জায়গায় একটি ভবন তৈরি যত সহজ- পুরোনো ভবন ভেঙে কাজটি করা কঠিন। সেই কঠিন কাজটি চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি আমরা। এটি হবে চট্টগ্রামের একটি আইকনিক স্থাপনা। যেখানে পাঠচর্চা, সংস্কৃতিচর্চা, শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনসহ সৃজন ও মননশীল মানুষের মিলনমেলা বসবে প্রতিদিন।

তিনি জানান, প্রকল্পের কাজ দ্রুত এগিয়ে নিতে হাইড্রোলিক রোটারি রিগ মেশিন, স্ট্যাটিক পাইল ড্রাইভার, স্কেভেটার, ক্রেন ইত্যাদি আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা হচ্ছে। কল্পলোকে বসানো হয়েছে মিকশ্চার প্ল্যান্ট। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা নিয়েছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। প্রতিদিন ২ শতাধিক শ্রমিক কাজ করছেন এ প্রকল্পে। প্রয়োজনে আরও যন্ত্রপাতি ও শ্রমিক বাড়ানো হবে।

গণপূর্ত অধিদফতরের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. তৌফিকুর রহমান জানান, পরিবেশবান্ধব সর্বাধুনিক দৃষ্টিনন্দন একটি কমপ্লেক্স করতে যা যা দরকার সবই রাখা হচ্ছে এ প্রকল্পে। সমস্যা ১৫ তলা লাইব্রেরি ভবন, অডিটোরিয়াম এলাকায় বৃষ্টির জন্য বিঘ্ন ছাড়া কাজ করতে অসুবিধা নেই। তবে মূল সড়কে গ্যাস, বিদ্যুৎ, ওয়াসার নতুন পাইপ লাইন ইত্যাদি ইউটিলিটি লাইন সরানো নিয়ে কিছুটা সময়ক্ষেপণ হচ্ছে। প্রথমে আন্ডারপাসের মাধ্যমে শহীদ মিনারে যাতায়াতের পরিকল্পনা করা হলেও পরে তা বাতিল করা হয়। এখন টানেলের মতো ওভারপাস করা হবে। মুসলিম ইনস্টিটিউট কমপ্লেক্স থেকে শহীদ মিনারে যাতায়াত করা হবে ওভারপাস দিয়ে। ঢোকা ও বের হওয়ার জন্য আলাদা পথ থাকবে। সব মিলে একটি আকর্ষণীয় কমপ্লেক্স হবে এটি।

জীর্ণশীর্ণ হয়ে পড়া মুসলিম হল অনুষ্ঠান আয়োজনের অনুপযোগী হয়ে পড়লে চট্টগ্রামের সংস্কৃতিকর্মীদের দাবির মুখে সরকার প্রকল্পটি গ্রহণ করে। সংস্কৃতি সংগঠকরা মনে করেন, এটি বাস্তবায়ন হলে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও গবেষকদের বই এবং তথ্যের চাহিদা যেমন পূরণ হবে তেমনি নগরে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে নতুন গতি আসবে।

উত্তরণবার্তা/এআর
 



ইসিতে দুই দালাল আটক

  আগস্ট ২২, ২০১৯

ভিসা করতে যা যা জেনে রাখা জরুরি

  আগস্ট ২২, ২০১৯     ১৫৮০

কোরবানির মাংসের অন্যরকম হাট!

  আগস্ট ১৩, ২০১৯     ১৩৫১

ভিসা ছাড়াই বিদেশভ্রমণ

  আগস্ট ২২, ২০১৯     ১১৩৫

নার্স খুনের কারণ জানালেন সহকর্মী

  আগস্ট ২১, ২০১৯     ১০৫১

চুলের যত্নে সরিষার তেল

  আগস্ট ২২, ২০১৯     ৩৯৭

পুরনো খবর