শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ৪ বৈশাখ ১৪২৮
ঢাকা সময়: ২১:০৫

চকরিয়ায় উদ্বোধন করলেন ঐতিহ্যের প্রতিক চিংড়ি ভাস্কর্য

জকরিয়া চৌং, চকরিয়া : সারাদেশে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলা চিংড়ি চাষের উর্বরভুমি হিসেবে পরিচিতি। প্রায় ২৫ হাজার আয়তন জায়গাজুড়ে বিস্তৃত জমিতে চিংড়িসহ নানা প্রজাতির মৎস্যচাষে জড়িত লক্ষাধিক মানুষ। প্রচার আছে, চকরিয়ার মৎস্যজোনে উৎপাদিত চিংড়ি মাছ দেশের গন্ডি পেরিয়ে বিদেশেও রপ্তানী হয়ে আসছে।
 
এভাবে মৎস্যচাষের সাথে সম্পৃত্ত লক্ষাধিক মানুষের যেমন জীবনচিত্র পাল্টে যাচ্ছে, তেমনি বিদেশে রপ্তানী করে সরকার প্রতিবছর মৎস্যখাত থেকে কোটি কোটি টাকা বৈদেশিক মুদ্রাও অর্জন করছে। এভাবে যুগের পর যুগ ধরে চকরিয়ার চিংড়িজোন দেশের জাতীয় অর্থনীতিতে একটি বিশাল অবদান রেখে আছে।
 
 
আর সম্পদ সমৃদ্ধ সম্ভাবনার চকরিয়ার ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা ও চিংড়িচাষের সঙ্গে জড়িত মানুষের জীবিকার সাথে সামঞ্জস্য রেখে চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরীর পরিকল্পনায় পৌরসভার অর্থায়নে পৌরভবনের প্রবেশপথে নির্মাণ করা হয়েছে ইতিহাস সমৃদ্ধ দৃষ্টিনন্দন চিংড়ি ভার্স্কয। তিনটি বিশাল আকৃতির চিংড়ি মাছ সাথে পানির নান্দনিক ফোয়ার সমৃদ্ধ এই ভাস্কর্যটি শুক্রবার ২৬ ফেব্রুয়ারী থেকে সর্বসাধারণের জন্য উন্মুর্থ করা হয়েছে আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের মাধ্যমে ভার্স্কযটি উদ্বোধন করা হয়েছে।
 
 
এই উপলক্ষ্যে চকরিয়া পৌরসভার আয়োজনে শুক্রবার বিকালে নবনির্মিত চিংড়ি চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কক্সবাজার-১ (চকরিয়া-পেকুয়া) আসনের সাংসদ ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম আনুষ্ঠানিকভাবে ভাস্কর্যটি উদ্বোধন ঘোষনা করেছেন।
চকরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক ত্রাণ বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব মো.নুরুল আবচার, চকরিয়া উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মকছুদুল হক ছুট্টু, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জেসি চৌধুরী সহ আরো অন্যান্য নেতাকর্মী। অনুষ্ঠানে মোনাজাত পরিচালনা করেন চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ জামে মসজিদের খতিব মৌলানা নেছারুল হক।
 
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি এমপি জাফর আলম বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা সরকারের উন্নয়ন অগ্রগতির অংশহিসেবে উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে যেমন চকরিয়া পৌরসভা বদলে যাচ্ছে, তেমনি দর্শনীয় শৈল্পিককর্মেও এগিয়ে যাচ্ছে চকরিয়া পৌরসভা।  চকরিয়া পৌরসভার অর্থায়নে নির্মিত দৃষ্টিনন্দিত এই ‘চিংড়ি ভাস্কর্যটিতে তিনটি চিংড়ির প্রতিকৃতি স্থান পেয়েছে। এই শৈল্পিক ভার্স্কযটি ইতিহাস, ঐতিহ্য, সভ্যতা ও মানুষের জীবিকার সাথে সামঞ্জস্য রেখে নির্মিত হওয়ায় চকরিয়াকে আরো একধাপ এগিয়ে নেয়া হয়েছে।
 
চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, আজ থেকে এই ‘চিংড়ি ভাস্কর্য’টি সবার জন্য উম্মুক্ত থাকবে। বিশেষ দিবসগুলোতে এই ভার্স্কযটি সর্বসাধারণকে বাড়তি আনন্দ দেবে। সেই প্রত্যাশা নিয়ে ফোয়ারা সমৃদ্ধ আধুনিকমানের এই ভার্স্কযটি নির্মাণ করা হয়েছে।
উত্তরণবার্তা/দেলোয়ার

  মন্তব্য করুন
     FACEBOOK