সোমবার, ৩০ জানুয়ারি ২০২৩, ১৭ মাঘ ১৪২৯
ঢাকা সময়: ১৭:৫০
ব্রেকিং নিউজ

‘নগদ’-এর মাধ্যমে প্রাথমিক উপবৃত্তি বিতরণে ডিপিই’র সুপারিশ

‘নগদ’-এর মাধ্যমে প্রাথমিক উপবৃত্তি বিতরণে ডিপিই’র সুপারিশ

উত্তরণবার্তা ডেস্ক : প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর (ডিপিই) চলতি অর্থবছরে (২০২২-২৩) বাংলাদেশ ডাক বিভাগের মোবাইল আর্থিক পরিষেবা প্রদানকারী ‘নগদ’-এর মাধ্যমে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে উপবৃত্তি বিতরণ করার সুপারিশ করেছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে সাম্প্রতিক একটি চিঠিতে, ডিপিই শুধুমাত্র এই মোবাইল আর্থিক পরিষেবার (এমএফএস)  মাধ্যমে প্রাথমিক উপবৃত্তি বিতরণের অনুরোধ করে। চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘১৩ ডিসেম্বর, ২০২০ তারিখে স্বাক্ষরিত চুক্তি অনুসারে, উপবৃত্তি বিতরণের জন্য নগদের সাথে একটি নতুন চুক্তি করার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। এর জন্য, প্রাসঙ্গিক নির্দেশিকা সংশোধন করা যেতে পারে।’ সূত্র মতে, প্রাথমিক শিক্ষা উপবৃত্তি সময়ে সময়ে অর্থ মন্ত্রণালয় কর্তৃক জারি করা গভর্নমেন্ট-টু-পার্সন (জি২পি) পেমেন্ট সিস্টেমের সাথে সঙ্গতি রেখে বিতরণ করা হত। এখন, অর্থ বিভাগের (জি২পি) সিস্টেম এবং ডিপিই-এর সমন্বিত ডিজিটাল সিস্টেমের মধ্যে সমন্বয়ের মাধ্যমে উপবৃত্তি প্রদান করা হয়। আগে শুধু ‘শিওরক্যাশ’-এর মাধ্যমে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে উপবৃত্তি পাওয়ার বাধ্যবাধকতা ছিল। পরে ডাক বিভাগের নগদকে দায়িত্ব দেওয়া হয়।

নগদ-এর সাথে অংশীদারিত্বের কারণে, সরকারের উপবৃত্তি বিতরণের খরচ উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে। এই এমএফএস  প্রদানকারী ক্যাশ-আউট চার্জ সহ উপবৃত্তি পাঠায় বলে শিক্ষার্থীরা সম্পূর্ণ পরিমাণ অর্থ পেয়ে থাকে। নগদের চিফ বিজনেস অফিসার শেখ আমিনুর রহমান বলেন, নগদ সফলভাবে ২০২১-২০২২ অর্থবছরে শিক্ষা উপবৃত্তি নামমাত্র চার্জে বিতরণ করেছে। তিনি উল্লেখ করেন, ‘আমরা যদি আবার দায়িত্ব পাই তাহলে চলতি অর্থবছরেও একই স্বচ্ছতা ও নির্ভুলতার সাথে আমাদের সেবা অব্যাহত রাখব।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর উন্নতির জন্য কাজ করছি। আমাদের প্রাথমিক শিক্ষা উপবৃত্তির বিতরণ তার সাক্ষ্য বহন করে।’গত অর্থবছরে, রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন এমএফএস অপারেটর ১ কোটি ২৫ লাখেরও বেশি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুর অভিভাবকদের জন্য সরকারি উপবৃত্তি পাঠিয়েছে। মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে, নগদ ৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকার বেশি উপবৃত্তি বিতরণ করেছে। এতে ছাত্রদের অভিভাবকরা অর্থ গ্রহণে কোন ঝামেলার সম্মুখীন হননি।

শিক্ষার্থীরা নগদের ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে তাদের জন্ম সনদপত্র ও তাদের অভিভাবকের এনআইডি-এর সাথে মোবাইল ফোন নম্বর থেকে তথ্য ব্যবহার করে নিবন্ধিত হন। সুতরাং, একবার উপবৃত্তি বিতরণ করা হলে, ছাত্রদের অভিভাবকরা তাদের নগদ অ্যাকাউন্টে ক্যাশ-আউট চার্জ সহ অর্থ গ্রহণ করেন। প্রাক-প্রাথমিক প্রতিটি শিক্ষার্থী এখন প্রতি মাসে ৭৫ টাকা উপবৃত্তি পায়। প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা প্রতি মাসে ১৫০ টাকা এবং একই পরিবারের দুই শিশু থাকলে মাসে ৩০০ টাকা পায়। এছাড়া  ষষ্ঠ থেকে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীরা পান ২০০ টাকা এবং একই পরিবারের দুই শিশু থাকলে মাসে ৪০০ টাকা পায়। স্কুল ড্রপ-আউট ঠেকাতে ও নারী শিক্ষার্থীদের ক্লাসে রাখার জন্য, সরকার ১৯৯৯ সালে প্রাথমিক উপবৃত্তি চালু করে। সরকার বর্তমানে সারাদেশে ১.৪ কোটি স্কুল শিশুদের মধ্যে উপবৃত্তি বিতরণ করছে।
উত্তরণবার্তা/এআর

  মন্তব্য করুন
     FACEBOOK
আরও সংবাদ