শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯
ঢাকা সময়: ১৮:৫১

বাইপাস সড়ক ও ব্রিজে গোপালগঞ্জের রামদিয়া বাজারের যানজট কমেছে

বাইপাস সড়ক ও ব্রিজে গোপালগঞ্জের রামদিয়া বাজারের যানজট কমেছে

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক :  বাইপাস সড়ক ও ব্রিজে  গোপালগঞ্জের রামদিয়া বাজারের যানজট কমেছে। দুর্ভোগ থেকে মুক্তি পেয়েছেন ওই সড়কে চলাচলকারী হাজার হ মানুষ। দৃষ্টি নন্দন বাইপাস সড়ক ও ব্রিজ ওই এলাকার মানুষের যাতায়াত পণ্য পরিবহন সহজ করে দিয়েছে। সেই সাথে বিল বেষ্টিত এলাকার মানুষের বিকেলের চিত্ত বিনোদনের মাধ্যমে পরিণত  হয়েছে এ বাইপাস সড়ক। প্রতিদিন বিকেলে গ্রামের বিভিন্ন বয়সের শত শত মানুষ এ সড়কে ঘুরাফেরা করছেন। এখান থেকে তারা নির্মল বায়ূ গ্রহণ করেছেন। রাস্তাপাশে বসে তারা সময় কাটাচ্ছেন। এ সড়ক ও ব্রিজ পেয়ে তারা খুবই উচ্ছসিত।গোপালগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ জাহিদ হোসেন বলেন, জেলার কাশিয়ানী উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক কেন্দ্র রামদিয়া বাজার। রামদিয়ায় একটি সরকারি কলেজ, ২ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, সরকারি খাদ্য গুদামসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এটি জেলার বিল এলাকার সবচেয়ে বড় বাজার। প্রয়োজনীয় রাস্তাঘাট এখানে গড়ে ওঠেনি।  সপ্তাহে এখানে ২ দিন হাট বসে। হাটের দিন এখানে যানজট তীব্র আকার ধারণ করে। যাতায়াতের ক্ষেত্রে হাটে আসা মানুষদের  চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এটি নিরসনে জেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে রামদিয়া খালের ওপর একটি ৭৬ মিটার সেতু ও ১ হাজার ৮০০ মিটার রামদিয়া বাজার বাইপাস সড়ক নির্মাণ করা হয়েছে। বাইপাস সড়কের একটি অংশ গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার সাতপাড় সড়কের সাথে যুক্ত করা হয়েছে। অপর অংশটি কাশিয়ানী উপজেলার ফুকরা লঞ্চঘাট ও ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের সাথে যুক্ত হয়েছে। এ পথে যাতায়াতকারীরা আগে রামদিয়া বাজারে প্রবেশ করতেন। এ কারণে যানজট লেগেই থাকত। এখন যাত্রীদের রামদিয়া বাজারে যেতে হয়না। তাই রামদিয়া বাজার যানজট মুক্ত হয়েছে। এলাকার পণ্য পরিবহন ও বাজারজাত করণ সহজ হয়েছে। কৃষকরা উৎপাদিত পণ্যের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন।ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, সড়কটি এলাকার মানুষের চিত্ত বিনোদনের মাধ্যমে পরিণত হয়েছে। তাই সড়কে বসার বেঞ্চ  করে দেওয়া হবে। এছাড়া ওই সড়কে ফুসকা, চটপটি, চা, কফির ক্যান্টিন বসানোর পরিকল্পনা  রয়েছে।

মাইক্রো চালক রুহুল আমিন (৫০) বলেন,রামদিয়া বাইপাস সড়ক নির্মিত হওয়ায় আমাদের এখন আর রামদিয়া বজারে ঢুকতে হয় না। এখন আমরা বাইপাস সড়ক ব্যবহার করে  গোপালগঞ্জ, খুলনা, ঢাকা, ফুকরা লঞ্চঘাট, সাতপাড় স্বাচ্ছন্দে যাতায়াত করতে পারি। কোন প্রকার যানজটে পড়তে হচ্ছে না। এ কারণে সময় বেঁচে যাচ্ছে। কাশিয়ানী উপজেলার গুঘালিয়া গ্রামের কৃষক হাসেম মিয়া (৪৫) বলেন, রামদিয়া বাজার বাইপাস সড়ক ও রামদিয়া খালের ওপর নির্মিত ব্রিজ আমাদের  যাতায়াত সহজ করে দিয়েছে। এখন আমরা সহজেই কৃষি পণ্য ও মৎস্য সম্পদ পরিবহন এবং  ঢাকা-খুলনা বাজরজাত করতে পারছি। আমরা ফসলের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছি। এতে আমাদের লাভ বেড়েছে। রামদিয়া বাজারের ব্যবসায়ী ফরহাদ হোসেন বলেন,রামদিয়া বাজার বাইপাস সড়ক আমাদের বাজারের যানজট নিরসনে রড় ভ’মিকা রেখেছে। বাইপাস সড়কের কারণে রামদিয়া বাজারের সাথে গ্রাম গুলোর কানেকটিভিটি বেড়েছে। যানজট মুক্ত পরিবেশে স্বাচ্ছন্দে ব্যবসা করতে পারছি। কৃষকরা সহজেই তাদের পণ্য এখানে এনে বিক্রি করতে পারছেন। পণ্য পরিবহন ও যাতায়াতে দুর্ভোগ কমেছে। এ কারণে  ব্যবসা আরো গতিশীল হয়েছে। লেনদেন বৃদ্ধি পেয়েছে। কৃষক শীতল বিশ্বাস (৫২) বলেন, আগে কৃষি পণ্য বাজারে নিতে দুর্ভোগের শেষ ছিল না। এখন বাইপাস সড়কের সাথে সাতপাড় সড়ক, ফুকরা লঞ্চঘাট সড়ক ও ঢাকা-খুলনা মহাসড়ক ব্যবহার করে আমরা সহজে পণ্য বাজারজাত করতে পারছি। এছাড়া আমাদের উৎপাদিত পণ্য পরিবহনও সহজ হয়েছে। বড় বড় বাজার ধরতে পেরে আমরা পণ্যের ন্যয্যমূল্য পেয়ে বাড়–তি টাকা ঘরে তুলতে পারছি। এ জন্য সড়ক বিভাগকে ধন্যবাদ জানাই। রামদিয়া বাজারের বাসিন্দা এমদাদ শেখ (৫০) বলেন, রামদিয়া খালের ওপর নব নির্মিত ব্রিজ ও বাজার বাইপাস সড়ক খুবই নয়নাভিরাম। বিলের মধ্যে এটি মনোরম সৌন্দর্য বর্ধণ করেছে। এখানে আমি  বিকেলে ঘুরতে যাই। মুক্ত বাতাস গ্রহণ করি। রাস্তার ঢালে বসে সময় কাটাই। এটি এখন আমাদের এলাকার মানুষের চিত্ত বিনোদনের স্থানে পরিণত হয়েছে। বিকেল হলেই একটু প্রশান্তি পেতে বিভিন্ন বয়সের মানুষ এখানে ছুটে আসেন। এটিকে ঘিরে বসার জায়গা, ক্যান্টিন ও বাহারী বৃক্ষ রোপণ করা হলে এটির আকর্ষণ আরো বহুগুনে বৃদ্ধি পাবে।
উত্তরণবার্তা/এআর

  মন্তব্য করুন
     FACEBOOK