মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১ ভাদ্র ১৪২৯
ঢাকা সময়: ১৫:৩৪
ব্রেকিং নিউজ

নড়াইলে কোরবানীর চাহিদার চেয়ে ৩৭ হাজার ৪শ’৬৬টি পশু উদ্বৃত্ত

নড়াইলে কোরবানীর চাহিদার চেয়ে ৩৭ হাজার ৪শ’৬৬টি পশু উদ্বৃত্ত

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক  : জেলায় কোরবানীর  চাহিদার চেয়ে ৩৭ হাজার ৪শ’৬৬টি পশু উদ্বৃত্ত রয়েছে।জেলার ৩ উপজেলায় কোরবানীর জন্য প্রস্তুত রয়েছে ৬৪ হাজার ৭শ’৪৮টি পশু। এ জেলায় কোরবানীর জন্য চাহিদা রয়েছে ২৭হাজার ২৮২টি পশুর। আসন্ন কোরবানীর ঈদে জেলার চাহিদা মিটিয়ে অতিরিক্ত কোরবানীর পশু বাইরের জেলায় বিক্রি করা হচ্ছে বলে জেলা প্রাণি সম্পদ অফিস সূত্রে জানা গেছে।জেলা প্রাণি সম্পদ অফিস সূত্রে জানা গেছে,জেলায় মোট খামারীর সংখ্যা ৪হাজার ৯শ’৭২জন।এর মধ্যে নড়াইল সদর উপজেলায় ১হাজার ৮২৯জন খামারী,লোহাগড়া উপজেলায় ১হাজার ৬৬২জন এবং কালিয়া উপজেলায় ১হাজার ৩০১জন খামারী রয়েছেন। কোরবানীতে বিক্রির উদ্দেশ্যে নড়াইল সদর উপজেলায় ষাঁড়, বলদ, গাভী,ছাগল ও ভেড়া পালন হয়েছে ২৪হাজার ৭৬০টি।কোরবনীর জন্য চাহিদা রয়েছে ৯হাজার ২৬৬টির।এ উপজেলায় উদ্বৃত্ত পশুর সংখ্যা ১৫হাজার ৪৯৪টি। লোহাগড়া উপজেলায় ষাঁড়, বলদ, গাভী,ছাগল ও ভেড়া পালন হয়েছে ২৩ হাজার ২৩৫টি। কোরবাানীর  জন্য চাহিদা রয়েছে ১০হাজার ১২৪টির।এ উপজেলায় উদ্বৃত্ত পশুর সংখ্যা ১৩হাজার ১১১টি এবং কালিয়া উপজেলায় ষাঁড়, বলদ, গাভী,ছাগল ও ভেড়া পালন হয়েছে ১৬ হাজার ৭৫৩টি।কোরবানীর জন্য চাহিদা রয়েছে ৭ হাজার ৮৯২টির।এ উপজেলায় উদ্বৃত্ত পশুর সংখ্যা ৮ হাজার ৮৬১টি।
 
জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা: মো: মারুফ হাসান জানান, নড়াইলে কোরবানীতে যে পরিমাণ পশুর চাহিদা রয়েছে তার চেয়ে অনেক বেশি পশু প্রস্তুত রয়েছে। এ জেলা থেকে বাইরের জেলায় ৩৭ হাজার কোরবানীর পশু বিক্রি করা যাবে। বর্তমানে বাজারে মাংসের যে দাম সে তুলনায় কোরবানীর পশুর দাম কম হবে না। ফলে খামারিরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন না বলে জানান এ কর্মকর্তা। সূত্রে জানা গেছে, আসন্ন কোরবানীকে সামনে রেখে মাইজপাড়া,লোহাগড়া,পহরডাঙ্গা, নাকশী-মাদ্রাসার হাটসহ জেলার ৯টি হাটে কোরবানীর পশু বেচাকেনা জমে ওঠেছে।কোভিড-১৯ এর বিধিনিষেধ মেনে পশুর হাটে বেচাকেনা করার জন্য জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে হ্টা ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ ও ক্রেতা-বিক্রেতাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিভিন্ন পশুহাটে জালনোট চক্রের অপতৎপরতা রুখতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে।
উত্তরণবার্তা/এআর

  মন্তব্য করুন
     FACEBOOK