মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮
ঢাকা সময়: ০০:১৪

করোনায় চট্টগ্রামে নতুন ১২ জন আক্রান্ত

করোনায় চট্টগ্রামে নতুন ১২ জন আক্রান্ত

উত্তরণবার্তা  প্রতিবেদক : করোনায় চট্টগ্রামে নতুন ১২ জনের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আক্রান্তের হার ০ দশমিক ৬৮ শতাংশ। তবে এ সময় শহর ও গ্রামে করোনাভাইরাসে কেউ মৃত্যুবরণ করেননি। করোনা সংক্রান্ত জেলার হালনাগাদ পরিস্থিতি নিয়ে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে পাঠানো সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টার রিপোর্ট থেকে এ সব তথ্য জানা যায়। প্রতিবেদনে দেখা যায়, ফৌজদারহাট বিআইটিআইডি ও নগরীর নয় ল্যাবে চট্টগ্রামের ১ হাজার ৭৬৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়।

এতে নতুন করে সংক্রমিত ১২ জনের মধ্যে শহরের ১০ ও গ্রামের ২ জন। গ্রামের ২ জনের মধ্যে হাটহাজারী ও সীতাকু-ের একজন করে রয়েছেন। জেলায় এ পর্যন্ত মোট আক্রান্ত ব্যক্তির সংখ্যা ১ লাখ ২ হাজার ৩৬২ জন। সংক্রমিতদের মধ্যে শহরের ৭৪ হাজার ৭০ ও গ্রামের ২৮ হাজার ৩০২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় কোনো রোগি মারা যায়নি। জেলায় মোট মৃতের সংখ্যা ১ হাজার ৩৩০ জনই রয়েছে। এর মধ্যে ৭২৩ শহরের ও ৬০৭ জন গ্রামের। ল্যাবভিত্তিক রিপোর্টে দেখা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় সবচেয়ে বেশি ৫১৭ জনের নমুনা পরীক্ষা হয় বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে।

তবে এখানে কোনো জীবাণুবাহক চিহ্নিত হয়নি। ফৌজদারহাটস্থ বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস ল্যাবে ৪৬৮টি নমুনার মধ্যে গ্রামের একটিতে ভাইরাস শনাক্ত হয়। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ল্যাবে ৬৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় শহরের ৩ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড এনিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১৫টি নমুনায় গ্রামের একটিতে করোনার জীবাণু পাওয়া যায়। বেসরকারি ল্যাবরেটরির মধ্যে শেভরনে ৪৫৬টি নমুনা পরীক্ষায় শহরের ২টিতে ভাইরাসের প্রমাণ মিলে।

আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে ১৬৯ জনের নমুনার মধ্যে শহরের ৪ জনের পজিটিভ রেজাল্ট আসে। মেট্রোপলিটন হাসপাতাল ল্যাবে ৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হলে শহরের একটি ভাইরাসে আক্রান্ত বলে রিপোর্টে জানানো হয়। এদিকে, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৩৫, আন্দরকিল্লা জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে ৩ ও মেডিকেল সেন্টার হাসপাতাল ল্যাবে ২৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। তিন ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষিত ৬৪ নমুনার সবক’টিরই নেগেটিভ রেজাল্ট আসে।  

এদিন এপিক হেলথ কেয়ার, ল্যাব এইড ও এন্টিজেন টেস্টে কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। ল্যাবভিত্তিক রিপোর্ট বিশ্লেষণে বিআইটিআইডি’তে ০ দশমিক ২১ শতাংশ, চমেকহা’য় ৪ দশমিক ৪৮, সিভাসু’তে ৬ দশমিক ৬৬, শেভরনে ০ দশমিক ৪৪, আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২ দশমিক ৩৬ শতাংশ ও মেট্রোপলিটন হাসপাতালে ১৪ দশমিক ২৮ শতাংশ এবং চবি, আরটিআরএল, ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টার হাসপাতাল ০ শতাংশ সংক্রমণ হার নির্ণিত হয়।
উত্তরণবার্তা/এআর
 

  মন্তব্য করুন
     FACEBOOK