প্রধানমন্ত্রী যেকোনো মূল্যে রিফাতের খুনিদের গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিয়েছেন : সেতুমন্ত্রী     একাত্তরে রণদা প্রসাদ হত্যায় মাহবুবের ফাঁসির আদেশ     দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন না হলে নিরাপত্তা শঙ্কা আছে : প্রধানমন্ত্রী     বাংলাদেশ এখন উন্নয়ন বিস্ময় : প্রধানমন্ত্রী     মাদাগাস্কারে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে পদদলিত হয়ে নিহত ১৬     প্রধানমন্ত্রী ২-৬ জুলাই চীন সফর করবেন     দুর্নীতি, সন্ত্রাস, মাদক, ইভটিজিং এর বিরুদ্ধে সংবাদ পরিবেশন করুন : প্রতি পূর্তমন্ত্রী     বিচার ব্যবস্থা স্বচ্ছ, গতিশীল ও জনমুখী হয়েছে : আইনমন্ত্রী    

স্বরূপে ফিরেছে বিএনপি : প্রধানমন্ত্রী

  নভেম্বর ১৫, ২০১৮     ১৬১     ৭:৩৯ অপরাহ্ণ    
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদকঃ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যখন বাংলাদেশের মানুষ নির্বাচনে উৎসবমুখর, যখন সবাই খুশি, ঠিক সেসময়ই বিএনপি আগুন সন্ত্রাস আবার শুরু হয়েছে। স্বরূপে ফিরেছে তারা। অাবার অাগুন দিয়ে গাড়ি পুড়িয়ে দিয়েছে।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর ধানমন্ডিতে অাওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংসদীয় বোর্ডের সভায় সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সবাই দাবি করেছে, তাই নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের সময় পিছিয়ে দিয়েছে। সবাই যখন আসলো, তখন নির্বাচনের জন্য একটি উৎসবমুখর পরিবেশ তৈরি হলো। কিন্তু জনগণ যখন নির্বাচন নিয়ে উৎসবমুখর হয় তখন বিএনপির খুব খারাপ লাগে। সেটাই বুধবার দেশবাসী দেখল। কোনো কথা নেই, বার্তা নেই, বিএনপি একটা মিছিল নিয়ে আসলো। যেখানে মিছিল নিয়ে আসার কথা না। তারপরও মিছিল নিয়ে এসে মারপিট, পুলিশকে আহত করল এবং পুলিশের গাড়ি পোড়াল।

তিনি বলেন, ২০১৫ সালে তারা অগ্নি-সন্ত্রাস করেছে, অগ্নি-সন্ত্রাস এবং মানুষ পোড়ানো ছাড়া বিএনপি কোনো কাজ করতে পারে না, এটাই বুধবার প্রমাণ করেছে, যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এ ধরনের কাজ করার পর একজনের দোষ আরেকজনের ঘাড়ে চাপানো- উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে দেয়ায় তারা পারদর্শী।

শেখ হাসিনা বলেন, যেখানে ভিডিও ফুটেজে দেখা গেল তাদের লোকজন এগুলো করছে। সেখানে তারা হুট করে বলে দিল ছাত্রলীগ-যুবলীগের ছেলেরা এ কাজ করেছে। ছাত্রলীগ গেল কখন এবং যাবে কেন? ভিডিও ফুটেজে তো সবার চেহারা দেখা যাচ্ছে, একটাও কী ছাত্রলীগ-যুবলীগের কারও চেহারা আছে। সবই তো বিএনপির গুন্ডাদের চেহারা। সবাই তো বিএনপির।

৪ হাজার ২৩ জন প্রার্থীর বিষয়টি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের সঙ্গে কিছু কথা বলেছি, এতো প্রার্থীর মাঝে প্রার্থী বেছে নেয়া কঠিন কাজ। ৪ হাজারের মাঝে ৩০০ বেছে নেয়া কঠিন কাজ। তারপরও আমরা মনোনয়ন বোর্ডে বসেছি। যাচাই-বাছাই করে ঠিক করবো।

আমি আশা করি, জনগণ নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে তাদের জীবনমানের উন্নয়ন নিশ্চিত করবে। জনগণ গত ১০ বছরে যে উন্নয়ন পেয়েছে, সেটা বিবেচনা করেই তারা নৌকায় ভোট দেবে।

(উত্তরণ/আইস)



সাপ নয় সাপপাখি

  জুন ২৫, ২০১৯     ৫১৯

গ্রিল স্বাদে মুখরোচক চিকেন

  জুন ১৭, ২০১৯     ৩৭০

শীর্ষে ‘স্লো মোশন’

  জুন ১৫, ২০১৯     ৩৪৭

পুরনো খবর