জমে উঠেছে রাজধানীর পশুর হাট গাবতলি     এবার গার্মেন্টস খাত অস্থিতিশীল করার খেলায় মেতেছে অশুভ চক্র : সেতুমন্ত্রী     আজ পবিত্র হজ     ঈদুল আজহা উপলক্ষে রাজধানীতে ৪০৯টি ঈদ জামাত হবে     ঈদে বাড়ি ফিরতে ট্রেনেই আস্থা     সদরঘাটে জনতার ঢল     প্রদর্শনী ম্যাচে মেসিবিহীন আর্জেন্টিনা     ১০ বছর নিষিদ্ধ নাসির জামসেদ    

নির্ধারিত সময়ের চার বছর আগে চালু হবে মেট্রোরেল

  এপ্রিল ২৬, ২০১৮     ১৪০          জাতীয় সংবাদ
--

ডেস্ক রিপোর্ট, উত্তরণবার্তা.কম ২৬ এপ্রিল : ‘বাঁচবে সময় বাঁচবে তেল, জ্যাম কমাবে মেট্রোরেল’-এ স্লোগানে শুরু হওয়া দেশের প্রথম মেট্রোরেল বাস্তবে রূপ পেতে শুরু করেছে।

বিশেষ উদ্যোগে কার্যক্রম পরিচালনা করায় নির্ধারিত সময়ের চার বছর আগেই মেট্রোরেল উদ্বোধনের ঘোষণা দিয়েছে নির্মাতা সংস্থা ঢাকা মেস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেড (ডিএমটিসিএল)।

চলতি মাসের শুরুতে মেট্রোরেলের স্টার্টিং পয়েন্ট উত্তরা দিয়াবাড়িতে দুটি পিলারের ওপর প্রথম স্প্যান বসানো হয়েছে। এই মাসের মধ্যে আগারগাঁও এলাকায় দ্বিতীয় স্প্যান বসানো হবে। আগামী বছরের ডিসেম্বরে উত্তরা-আগারগাঁও পর্যন্ত প্রায় ১২ কিলোমিটার দীর্ঘ রুটে মেট্রোরেল চালু হবে।

আর আগারগাঁও-মতিঝিল পর্যন্ত ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ রুটে মেট্রোরেল ২০২০ সালের মধ্যে চালু হবে। ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে মেট্রোরেলের কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ ইচ্ছার কারণে প্রকল্পের কাজের গতি ত্বরান্বিত করা হয়েছে।

সরেজমিন দেখা গেছে, ঢাকা শহরের যানজট নিরসনে অগ্রাধিকার প্রকল্প মাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (এমআরটি) লাইন-৬ এর কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে। উত্তরা থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত রাত-দিন নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে বিরতিহীন কাজ চলছে।

কোথাও পিলার তোলার জন্য মাটি খোঁড়া হচ্ছে। উত্তরায় মেট্রোরেলের ডিপো তৈরির কাজ চলছে। তৈরি করা হচ্ছে ভায়াডাক্ট। আগারগাঁও থেকে মিরপুর ১২ নম্বর পর্যন্ত মূল সড়কের অর্ধেকাংশ বন্ধ করে দিনরাত চলছে কাজ। দিয়াবাড়ি, পল্লবী, তালতলা, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও সড়কে কাজ চলছে।

আগারগাঁও এলাকায় পাইলিংয়ের জন্য বিশাল আকৃতির ক্রেন, এসকাভেটর বসানো হয়েছে। খননের সময় ওঠা মাটি উত্তরায় একটি ডাম্পিং সাইটে ফেলা হচ্ছে। দুর্ঘটনা এড়াতে প্রকল্প বাস্তবায়ন ও সড়ক ব্যবস্থাপনায় ‘হার্ড ব্যারিয়ার’ ব্যবহার করা হচ্ছে।

এর ওপর কাঁটাতারের ব্যারিকেড দেয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে সতর্কতার সঙ্গে মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ করা হচ্ছে। এর পরও এ সড়কে যাত্রীরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এমএএন ছিদ্দিক উত্তরণবার্তাকে বলেন, বিশেষ উদ্যোগ নেয়ায় মেট্রোরেলের নির্মাণ কাজে গতি বেড়েছে। এ কারণে নির্ধারিত সময়ের বেশ আগেই মেট্রোরেলের কাজ শেষ হচ্ছে। দেশের মেগা প্রকল্পের ক্ষেত্রে এটি একটি ইতিবাচক দৃষ্টান্ত।

যানজট নিরসনে গৃহীত সরকারের এই মেগা প্রকল্পের সুবিধা আগামী বছর থেকে পাবে দেশের জনগণ। আর ২০২০ সালের মধ্যে প্রকল্পের পুরো কাজ শেষ করার লক্ষ্যে দ্রুতগতিতে কার্যক্রম পরিচালনা করা হচ্ছে।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান, উত্তরা-মতিঝিল পর্যন্ত ২০.১ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেল পথে ৭৭০টি স্প্যান বসবে। এ রেলপথে ১৬টি স্টেশন থাকবে। এ পথে ১৪ জোড়া ট্রেন চলাচল করবে। প্রতিটি ট্রেন এক হাজার ৬৯৬ জন যাত্রী বহন করতে পারবে।

এর মধ্যে ৯৪২ জন বসে এবং ৭৫৪ জন দাঁড়িয়ে থাকতে পারবে। ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার গতিসম্পন্ন মেট্রোরেল ৩৭ মিনিটে উত্তরা থেকে মতিঝিল পৌঁছাবে। প্রতি চার মিনিট অন্তর ট্রেন ছেড়ে যাবে। উভয় দিক থেকে ঘণ্টায় ৬০ হাজার যাত্রী চলাচল করতে পারবে।

প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকার এই প্রকল্পে ১৬ হাজার ৫৯৪ কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা দিচ্ছে জাইকা। পাঁচ হাজার ৩৯০ কোটি ৪৮ লাখ টাকা ব্যয় করছে সরকার।

২০১২ সালের ১৮ ডিসেম্বর সরকার এ প্রকল্প অনুমোদন করে। প্রাথমিক মেয়াদকাল ছিল ২০১২ সালের জুলাই থেকে ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত। ২০১৬ সালের ২৬ জুন নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ত্বরিত গতিতে কাজ করায় নির্ধারিত সময়ের প্রায় চার বছর আগেই প্রকল্পের কাজ শেষ করার ঘোষণা দিয়েছে ডিএমটিসিএল। দেশের প্রথম মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নকারী সংস্থা ডিএমটিসিএল সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধিভুক্ত একটি সরকার কোম্পানি।

প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি : এমআরটি লাইন-৬ এর কাজ আটটি প্যাকেজের মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্যাকেজ-১ এ মেট্রোরেলের ডিপো এলাকার ভূমি উন্নয়ন কাজ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে এ প্যাকেজের শতভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। প্যাকেজ-২ এর ডিপো এলাকার পূর্ত কাজ।

ইতিমধ্যে ডিপো এলাকার পূর্ত কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৪ শতাংশ। প্যাকেজ-৩ ও ৪ এর আওতায় উত্তরা-আগারগাঁও পর্যন্ত ভায়াডাক্ট ও স্টেশন নির্মাণ কাজ করা হচ্ছে। এখন পর্যন্ত এ প্যাকেজের ৫ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।

প্যাকেজ-৮ এর আওতায় মেট্রোরেলের কোচ ও ডিপো ইকুইপমেন্ট সংগ্রহ করা হচ্ছে। এ প্যাকেজের কাজের অগ্রগতি ৯ শতাংশ। প্যাকেজ-৫ ও ৬ এর আওতায় আগারগাঁও থেকে মতিঝিল পর্যন্ত অংশের ভায়াডাক্ট ও স্টেশন নির্মাণ কাজ করা হবে এবং প্যাকেজ-৭ এর আওতায় মেট্রোরেলের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড মেকানিক্যাল সিস্টেমের কাজ করা হবে।

৫৯ একর জমির ওপর নির্মিত হচ্ছে বৈদ্যুতিক চালিত মেট্রোরেলের মূল ডিপো। আর এ মেট্রোরেলের বিদ্যুৎ সরবরাহ করতে স্থাপন করা হচ্ছে দুটি বিদ্যুৎ প্ল্যান্ট।

উত্তরা-আগারগাঁও পর্যন্ত অংশের ৯টি স্টেশন নির্মাণ কাজের মধ্যে ২, ৩ ও ৪ নম্বর স্টেশন নির্মাণ কাজ চলছে। দ্বিতল ভবনের সমান উচ্চতার প্রতিটি স্টেশনের নিচতলায় থাকবে টিকিট ঘর। প্রবেশ পথ হবে স্বয়ংক্রিয়।

এখন পর্যন্ত প্রকল্পের মোট ব্যয়ের ১৩.৪০ শতাংশ খরচ হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রকল্পের কাজের অগ্রগতি ১৫ শতাংশ। আগামী ৩০ এপ্রিল দাতা সংস্থার সঙ্গে এ প্রকল্পের কাজের চূড়ান্ত চুক্তি হওয়ার কথা রয়েছে।

মেট্রোরেল স্টেশন : মেট্রোরেলের স্টেশনগুলো হবে উত্তরা উত্তর, উত্তরা সেন্টার, উত্তরা দক্ষিণ, পল্লবী, মিরপুর-১১, মিরপুর-১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, আগারগাঁও, বিজয় সরণি, ফার্মগেট, কারওয়ান বাজার, শাহবাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ সচিবালয় ও মতিঝিলে।

উত্তরণবার্তা.কম/এআর
 



যমজ লাল্টু-পল্টুর দাম ২০ লাখ

  আগস্ট ১২, ২০১৮     ৪৪৭৭

রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের সূচি

  জুন ০৬, ২০১৮     ৪১০৯

পুরনো খবর