জলবায়ুর বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় ‘সদিচ্ছা’ প্রদর্শনের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর     বাংলাদেশ-আবুধাবি বাণিজ্য ও বিনিয়োগের নতুন দুয়ার খুলছে     আত্মঘাতি গোল ব্রাদার্সের     সরকারি হলো আরো ৪ মাধ্যমিক বিদ্যালয়     আওয়ামী লীগের সম্পাদকমন্ডলীর সভা আগামীকাল     সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসনে ৪৯ জনকে চূড়ান্তভাবে বিজয়ী ঘোষণা     মুক্তিযুদ্ধে ভারতের অবদান কোনোদিন ভুলবার নয় : তথ্যমন্ত্রী     শিক্ষার্থীদের আত্মবিশ্বাসী মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে : শিক্ষামন্ত্রী    

দেশে পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে: বিশ্বব্যাংক

  অক্টোবর ১১, ২০১৮     ৮৫     ১:০৫ পূর্বাহ্ন     জাতীয় সংবাদ
--

উত্তরণবার্তা অর্থনীতি ডেস্ক : দেশে ব্যবহার করা ৪১ শতাংশ পানিতে ই. কোলাই ব্যাক্টেরিয়ার সংক্রমণ রয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক। এতে ডায়েরিয়া, জন্ডিস ও কলেরাসহ বিভিন্ন পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব বাড়ছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বহুজাতিক ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানটির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে। রাজধানী সোনাগাঁও হোটেলে বিশ্বব্যাংকের স্যানিটেশন ও স্বাস্থ্যবিধি প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশের পানিতে আর্সেনিক ঝুঁকি বাড়ছে।

এ সময় পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম, বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ, নেপাল ও ভুটান অঞ্চলের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর শিরিন ঝুমা, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব রুখসানা কাদের ছিলেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, পানিতে ই. কোলাই ব্যাকটোরিয়া থাকায় এবং স্যানিটেশন সমস্যার কারণে এক পঞ্চশাংশ দারিদ্র মানুষ পেটের পীড়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। দারিদ্র্য, উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত, শহর ও গ্রামের সবাই পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। তবে, শহরের বস্তিতে বাস করা লোকজন আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যায় বেশি।

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রযুক্তির উন্নয়নের কারণে এখন ৯৮ শতাংশ মানুষের কাছে পানি সরবরাহ করা হচ্ছে। কিন্তু এর চেয়ে প্রধান সমস্যা হলো সবার কাছে নিরাপদ পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা। কিন্তু সেটা সম্ভব হচ্ছে না বলেও জানানো হয়েছে বিশ্বব্যাংকের প্রতিবেদনে।

প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, দেশের পাঁচ কোটি মানুষ টয়লেট শেয়ার করে। অর্থ্যাৎ একাধিক পরিবারের লোকজন একটি টয়লেট ব্যবহার করে। এই সংখ্যা গ্রামে যেমন রয়েছে তেমনি শহরেও রয়েছে। তবে শহরের বস্তি এলাকায় টয়লেট শেয়ারের সংখ্যা গ্রাম এলাকার লোকজনের তুলনায় তিনগুণ বেশি।

‘ফলে এসব লোকজন নানা প্রকার রোগব্যাধিতে আক্রান্ত হচ্ছে।’

বিশ্বব্যাংক জানায়, বাংলাদেশে ভুগর্ভস্থ পানির ১৩ শতাংশে আর্সেনিক রয়েছে। সিলেট ও চট্রগ্রাম বিভাগে এই আর্সেনিকের সংখ্যা বেশি। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে পানিতে আর্সেনিকের সংখ্যা বাড়ছে।

‘বাংলাদেশে দ্রুত দারিদ্র্য বিমোচন হচ্ছে। তাই দারিদ্র্য বিমোচনের পাশাপাশি জরুরি নিরাপদ পানি সরবরাহ এবং স্যানিটেশন ব্যবস্থার উন্নতি করতে হবে ‘

বিশ্বব্যাংকের কান্ট্রি ডিরেক্টর শিরিন ঝুমা বলেন, স্যানিটেশন এবং পানিজনিত সমস্যার কারণে বাংলাদেশের অনেক শিশু যথাযথভাবে বিকশিত হচ্ছে না। পাঁচ বছর বয়সের নীচে শিশুরা সবচেয়ে বেশি পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

ঝুমার ভাষ্য, বাংলাদেশকে পানি ও স্যানিটেশন সমস্যা থেকে বের হয়ে আসতে হবে। এজন্য বিশ্বব্যাংক সব ধরনের সহায়তা করবে।

উত্তরণবার্তা/এআর



‘মও’ আতঙ্ক

  ফেব্রুয়ারী ১৮, ২০১৯

আসছে হুয়াওয়ে পি৩০ ও পি৩০ প্রো

  ফেব্রুয়ারী ১১, ২০১৯     ৬২৬

মুলতানকে জেতালেন আফ্রিদি-মালিক

  ফেব্রুয়ারী ১৬, ২০১৯     ৩০৫

সিরিজ হার বাংলাদেশের

  ফেব্রুয়ারী ১৬, ২০১৯     ২৭০

আমিরের আগুন বোলিং বৃথা মালিকের ঝড়

  ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০১৯     ২৬৯

প্রস্তুতি ম্যাচে টাইগারদের সংগ্রহ ২৪৭

  ফেব্রুয়ারী ১০, ২০১৯     ২৪০

মিয়ানমার ফিরেছে ৮ পরিবার

  ফেব্রুয়ারী ১১, ২০১৯     ১৩৪

দেখে নিন সেরা পাঁচ ফিল্ডার কে

  ফেব্রুয়ারী ১৫, ২০১৯     ১২১

বাজারে এল স্যামসাং গ্যালাক্সি এম১০

  ফেব্রুয়ারী ১২, ২০১৯     ১০৯

মুখরোচক শাহী কাঠি কাবাব

  ফেব্রুয়ারী ১২, ২০১৯     ৮৯

পুরনো খবর