মাইলফলকের ম্যাচে টাইগারদের প্রত্যাশিত জয়     আমরা আর দুর্নীতিতে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান হতে চাইনা : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী     জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে শিগগিরই ছোট হবে মন্ত্রিসভা : ওবায়দুল কাদের     ২৩তম অধিবেশন ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত চালানোর সিদ্ধান্ত     ১০ বছরে ডিএসসিসি ১৯৩.৭১ ও ডিএনসিসি ১৯৫.২৫ কিলোমিটার ফুটপাত নির্মাণ করেছে     আগামী বুধবার উদ্বোধন হবে বিশ্বের সর্ববৃহৎ বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট     খাশোগি হত্যা : ট্রাম্পের ভাবনায় অস্ত্রনীতি     ঢাবির ‘ঘ’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা বাতিল চেয়ে রিট    

হালদায় জাল পেতে মা-মাছ শিকার করছে ওরা

  সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৮     ৮১     ১০:৪০ পূর্বাহ্ন     আরও
--

উত্তরণবার্তা ডেস্ক : দেশের একমাত্র রুই-কাতলা-মৃগেল বা কার্প জাতীয় মাছের প্রাকৃতিক প্রজননস্থল চট্টগ্রামের হালদা নদীতে মা-মাছের নিরাপত্তা বিধান এবং নদীর পানিকে মানবসৃষ্ট দূষণ থেকে রক্ষাই এখন বড় চ্যালেঞ্জ। নদী ও মাছ বিশেষজ্ঞরা এরকম অভিমত ব্যক্ত করে বলেছেন, এখনো অসাধু ব্যক্তিরা হালদা নদীতে গোপনে জাল পেতে মা-মাছ শিকারের তত্পরতা চালাচ্ছে। অন্যদিকে হাটহাজারী-রাউজান-ফটিকছড়ি উপজেলাসহ বিভিন্ন স্থানে নদী তীরবর্তী বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের কারণে হালদার পানি দূষিত হচ্ছে।
 
চট্টগ্রামের পরিবেশবাদী সংগঠন পিপলস ভয়েসের সভাপতি শরিফ চৌহান বলেন, হালদা নদীর পানি দূষণমুক্ত রাখা এবং মা-মাছদের রক্ষায় সরকার নানা ধরনের উদ্যোগ নিয়েছে। তবে এসব উদ্যোগের আরো কঠোর প্রয়োগ এবং হালদা সুরক্ষায় সমন্বিত কার্যক্রম প্রয়োজন। জনসচেতনতা বাড়াতে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে আরো ব্যাপক তত্পরতা প্রয়োজন বলে তিনি অভিমত দেন।
 
এদিকে হাটহাজারী উপজেলায় সদ্য যোগদানকারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রুহুল আমিন গত ২৪ সেপ্টেম্বর উপজেলার মেখল ইউনিয়নের মোজাফফরপুর গ্রামে এক ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। সেখানে হালদা নদীতে মশারি জাল বিছিয়ে মা-মাছ শিকাররত মোঃ সাইফুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তিকে আটক করে ১ মাসের কারাদণ্ড প্রদান করেন। এসময় তিনি হালদায় অসাধু মাছ শিকারীদের প্রতিরোধে জনগণের সহায়তা কামনা করে বলেন, হালদা নদী রক্ষায় সরকার যে ব্যাপক কার্যক্রম হাতে নিয়েছেন তা সফল করতে হবে।
 
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এবং হালদা রক্ষা কমিটির সভাপতি ড. মঞ্জুরুল কিবরিয়া বলেন, হালদা রক্ষায় সরকারের উদ্যোগ এবং নানা ধরনের ইতিবাচক উদ্যোগের কারণে এই নদীতে এবছর গত প্রায় দেড় দশকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পরিমাণ ডিম ছেড়েছিল মা-মাছেরা। এই উত্তরণ এখন হালদা অনুরাগী সকল মহলের জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। চ্যালেঞ্জটি হচ্ছে যে অগ্রগতি হয়েছে তাকে ধরে রেখে হালদার সামগ্রিক অবস্থার আরো উন্নয়ন ঘটানো। তিনি বলেন, বর্তমানে নদীর মাছ পাহারায় স্পিডবোট ব্যবহার করা হচ্ছে। সরকারের উচ্চ পর্যায়ের কমিটি হালদা নদী পরিদর্শন করে গেছে। সম্প্রতি হালদার আশেপাশের বালির মহাল সব বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এই অবস্থায় হালদা নদীতে বর্তমানে মা-মাছদের নিরাপত্তা ভাল অবস্থানে আছে।
 
ড. কিবরিয়া আরো বলেন, সিডিএ’র অনন্যা আবাসিকের অপরিকল্পিত কিছু কার্যক্রমের কারণে   এবছর হালদায় যে দূষণ সৃষ্টি হয়েছিল সে ব্যাপারে সিডিএ কর্তৃপক্ষ দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ভূমি উদ্ধারের জন্য সেখানকার বামনশাহী খালটি বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। এতে হালদায় দূষণ ঘটেছিল। সিডিএ খালটি পুনরায় খনন করে কর্ণফুলীর সাথে সংযুক্ত করার উদ্যোগ নিয়েছে।
 
হালদা রক্ষা কমিটির সাধারণ সম্পাদক স্থানীয় সাংবাদিক মোহাম্মদ আলী বলেন, হালদা নদীর অনেক পয়েন্টে এখনো গোপনে মা-মাছ শিকারের কথা শোনা যাচ্ছে। অসাধু ব্যক্তিরা হাতজাল ও ঘেরজাল ব্যবহার করে গোপনে এসব অপকর্ম করছে। এগুলো প্রতিরোধে আরো জোরদার পদক্ষেপ নেয়া দরকার। এছাড়া হালদায় দূষণের জন্য দায়ী মদুনাঘাট এলাকার খন্দকিয়া খালসহ মাদরাসা এলাকার আরো কয়েকটি খালের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে আরো নজরদারি বাড়াতে হবে বলে তিনি অভিমত দেন।
 
উত্তরণবার্তা/এআর
 



নতুন আর্জেন্টিনা পুরনো ব্রাজিল

  সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৮     ৭৮৫০

যমজ লাল্টু-পল্টুর দাম ২০ লাখ

  আগস্ট ১২, ২০১৮     ৪৫৭৮

রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের সূচি

  জুন ০৬, ২০১৮     ৪২৮৯

পান খাওয়ার উপকারিতা

  অক্টোবর ১৫, ২০১৮     ২২২৫

পুরনো খবর