ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী, সাংবাদিকদের উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই     জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী     ঢাবি খ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা শুরু     জাতিসংঘের ৭৩তম অধিবেশন, নিউইয়র্কের উদ্দেশে আজ ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী     পবিত্র আশুরা আজ     রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে জাতিসংঘে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব দেবেন প্রধানমন্ত্রী     সংসদে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা কল্যাণ ট্রাস্ট বিল, ২০১৮ পাস     তিন খেলোয়াড়কে ফ্ল্যাট দিলেন প্রধানমন্ত্রী    

জমে উঠেছে রাজধানীর পশুর হাট গাবতলি

  আগস্ট ২০, ২০১৮     ৩৪     ১:১৬ অপরাহ্ণ     জাতীয় সংবাদ
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : কোরবানির ঈদের বাকি মাত্র এক দিন। এখনো অনেকেই কিনতে পারেনি কোরবানির পশু। তাই কেনা-বেচার শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে রাজধানীর বৃহৎ কোরবানির পশুর হাট গাবতলি।

আজ সোমবার দুপুরে গাবতলি পশুর হাটে গিয়ে দেখা গেছে, বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্রেতাদের ভিড় বেড়েই চলছে। কেউ কিনছেন, কেউ দরদাম করছেন, আর বনিবনা না হলে অন্য গরু দেখছেন। পছন্দ হলে টাকা দিয়ে গরুর দড়ি হাতে নিয়ে বাড়ির পথ ধরছেন।

এইবারের ঈদে বেশির ভাগ বড় পশু হাটগুলোতেই পর্যাপ্ত পশুর সরবরাহ রয়েছে। তবে গরু বিক্রেতাদের অভিযোগ, ভারত ও মিয়ানমার থেকে প্রচুর গরু এসেছে। এ কারণে আমদানিকৃত পশুর দামের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছেন না তারা। ফলে দেশের কৃষক-খামারিরা ভাল দাম পাননি, যা তাদের হতাশ করেছে। যদিও বিক্রেতারা বলছেন, দাম কম পেয়েছি তবে লোকসান হয়নি।

গাবতলি পশুর হাটে কুষ্টিয়া থেকে ১৫টি গরু এনেছেন খামারি রমিজ উদ্দিন। তিনি গাবতলিতে গরু নিয়ে এসেছেন গত শুক্রবার। শনি এবং রোববার এই দুইদিনে ৬টি গরু বিক্রি করেছেন তিনি। প্রতিটি গরুতে গড়ে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা লাভ করেছেন তিনি। এখন তার কাছে অবিক্রিত গরু আছে ৯ টি। প্রতিটি গরুর দাম এক লাখ টাকার উপড়ে।

তিনি বলেন, ‘আশানুরূপ দাম পাচ্ছি না। গত বছর ১০টি গরু হাটে এনেছিলাম। সে বছর ১০টি গরুতে এক লাখ ৩০ হাজার টাকা লাভ করেছিলাম। এবার তার অর্ধেকও হবে না বলে মনে হচ্ছে।’

তিনি আরো বলেন, ‘প্রতি বছর কোরবানির ঈদের আগে ভারত ও মিয়ানমার থেকে ঢাকার বাজারে গরু আসে। ফলে দেশি গরুর দাম কমে যায়। এতে আমরা খামারিরাই ক্ষতিগ্রস্ত হই। এভাবে চলতে থাকলে এ ব্যবসা থেকে অনেকেই সরে যাবেন।’

অন্য এক খামারি ইসমাইল হোসেন বলেন, আমি ২২টি গরু নিয়ে গাবতলি এসেছি। তার গরুই মাঝারি আকারের গরুগুলো ৬০ থেকে ৭০ হাজারের মধ্যে গরু বিক্রি করে দিয়েছি।

তিনি বলেন, ‘৬০ হাজারের গরু সাড়ে তিন মণ এবং ৭০ হাজারের গরুর চার মণ মাংস হবে। ক্রেতারা দরদাম বেশি করছে। তারা গতবারের সঙ্গে তুলনা করছে। এবার গরুর প্রতিটি খাবারের দাম বেড়ে দিগুণ হয়েছে। ক্রেতারা এটা বুঝতেই চাচ্ছেন না।’

মোহাম্মদপুর থেকে গাবতলিতে গরু কিনতে আসা মোহাম্মদ রহমান খান বলেন, গরুর দাম এইবার অনেক বেশি মনে হচ্ছে। ভেবেছিলাম ৮০ হাজার টাকার মধ্যে একটি গরু কিনবো। কিন্তু দেখলাম গত বছর যে গরু ৮০ হাজার টাকা ছিল সেটা এইবার এক লাখ টাকার উপড়ে দাম চাওয়া হচ্ছে।

উত্তরণবার্তা/এআর
 



সবাইকে ‘বিয়ের দাওয়াত রইলো’

  সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮

যুগ্ম সচিব হলেন ১৫৭ কর্মকর্তা

  সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৮

নতুন আর্জেন্টিনা পুরনো ব্রাজিল

  সেপ্টেম্বর ০৭, ২০১৮     ৭৭৯৯

যমজ লাল্টু-পল্টুর দাম ২০ লাখ

  আগস্ট ১২, ২০১৮     ৪৫৩৮

রাশিয়া বিশ্বকাপ ফুটবলের সূচি

  জুন ০৬, ২০১৮     ৪২২৭

পুরনো খবর