২০৮ উপজেলা-ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ চলছে     ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক দিবস ঘোষণা করে পরিপত্র     রোহিঙ্গাদের প্রতি নৃশংসতার বিচার নিশ্চিত করতে চায় নেদারল্যান্ডস     তৃতীয় শ্রেণি পাস ‘বিশেষজ্ঞ’ চিকিৎসক! জামাই প্রেসক্রিপশন লিখতো, শ্বশুর করতেন স্বাক্ষর     করোনায় আরও ২১ মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৩৭     মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করার নির্দেশ মন্ত্রিসভার     বিএনপির কর্মসূচি জনরায়ের বিরুদ্ধে, শান্তি নষ্ট হলে প্রতিহত     করোনা: ইতালিতে নতুন করে বিধিনিষেধ আরোপ    

বিশ্ব জুড়ে নজরদারি করবে এক বিলিয়ন ক্যামেরা

  সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০     ৫৩     ১১:০০     শিক্ষা
--

উত্তরণ বার্তা তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক : সম্প্রতি আইএইচএস মার্কিটের প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বজুড়ে ২০২১ সালের মধ্যে এক বিলিয়ন নজরদারী ক্যামেরায় নজরে রাখবে বিশ্বের মানুষদের। এই ক্যামেরার অর্ধেকেরও বেশি আছে চীনে।

চীন সরকারের ডাটা অক্সেসসহ নজরদারি প্রযুক্তির সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্পর্কে বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করার পরে এ প্রতিবেদনটি প্রকাশিত হয়। প্রতিবেদন অনুযায়ী, বর্তমানে বিশ্বজুড়ে ৭৭০ মিলিয়ন নজরদারি ক্যামেরা রয়েছে। এর মধ্যে ৫৪ শতাংশই রয়েছে চীনে। হিকভিশন, হুয়াওয়ে এবং দাহুয়াসহ ভিডিও নজরদারি পণ্য উত্পাদনকারী অন্যতম প্রতিষ্ঠানগুলো রয়েছে চীনে। রাস্তায়, লাইটপোস্টে ও বিল্ডিংগুলোতে থাকা ক্যামেরাগুলোর মাধ্যমে চেহারা সনাক্তকরণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে চীন একটি নজরদারি রাষ্ট্রে পরিনত হয়েছে। এ প্রযুক্তি আলাদা আলাদা চেহারা সনাক্ত করতে পারদর্শী।

কার্নেগি এন্ডোমেন্ট ফর ইন্টারন্যাশনাল পিস থিঙ্ক ট্যাঙ্কের প্রতিবেদন অনুসারে, বর্তমানে চীন ৬৩টি দেশে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন নজরদারি প্রযুক্তিপণ্য সরবরাহ করছে। ইতোমধ্যে বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ নামের চীনের বিশাল অবকাঠামোগত প্রকল্পে ৩৬ দেশ অন্তর্ভূক্ত হয়েছে।

অস্ট্রেলিয়ার স্ট্যাটেজিক পলিসি ইনস্টিটিউট (এআসপিআই)-এর গবেষণা অনুসারে, জার্মানি, স্পেন ও ফ্রান্সের মতো দেশ বর্তমানে স্মার্ট সিটি নিয়ে কাজ করছে। বর্তমানে চীন বিশ্বের যেকোনো অঞ্চলের চেয়ে অনেক বেশি নজরদারি সম্পন্ন ক্যামেরার সংযোজন করছে। প্রতিবেদন অনুযায়ী, সমস্ত সংযোজন করা ক্যামেরার মধ্যে ১৮ শতাংশ সংযোজন করে-এর পরের অবস্থানেই রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। চীন বাদে এশিয়ার অন্যদেশগুলোতে সংযোজন হয় মাত্র ১৫ শতাংশ।

বিশ্বের ৫০টি সিসিটিভি নজরদারি শহরের জরিপে তেলেঙ্গানার রাজধানী হায়দ্রাবাদ একটি স্থান দখল করেছে। যুক্তরাজ্যের প্রযুক্তি সংস্থা কম্পারিটেকের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ঐ ৫০টি শহরের মধ্যে হায়দ্রাবাদ ১৬তম অবস্থানে রয়েছে এবং সমস্ত ভারতের মধ্যে শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। এই তালিকার ২১ তম স্থানে রয়েছে চেন্নাই। ভারতীয় নজরদারি শহরগুলোর মধ্যে চেন্নাইয়ের অবস্থান দ্বিতীয়। তালিকা অনুযায়ী দিল্লি ৩৩তম স্থানে রয়েছে এবং ভারতীয় নজরদারি শহরগুলো মধ্যে রয়েছে তৃতীয় অবস্থানে। অন্যদিকে চীনের তাইয়ুন সর্বাধিক নজরদারির শহর। যেখানে ৩৯ লাখ লোকের জন্য রয়েছে ৪.৬ লাখ ক্যামেরা। ওই হিসেবে প্রতি এক হাজার লোকের জন্য ১২০টি ক্যামেরা নজরদারি করছে। এ অনুপাত ৫০টি নজরদারি শহরগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি। এ তালিকায় চীনের রাজধানী বেইজিং রয়েছে পঞ্চম অস্থানে এবং বাণিজ্যিক শহর সাংহাই রয়েছে ১২তম অবস্থানে।

তাইয়ুন, লন্ডন এবং বাগদাদ প্রতি এক হাজার জনের মধ্যে জরিপ করে দেখা গিয়েছে সিসিটিভির তুলনায় সেখানে বেশি অপরাধ করার হার রয়েছে। হায়দ্রাবাদের পুলিশ সিসিটিভি নজরদারিতে নিয়োজিত হওয়ায় নেট দুনিয়ায় প্রশংসিত হয়েছে। তবে এ নজরদারি নাগরিকদের গোপনীয়তা লঙ্ঘন হতে পারে বলে নীতি নির্ধারকরা এখনও উদ্বিগ্ন।

উত্তরণ বার্তা/এআর
 



পুরনো খবর