ফুঁসে উঠেছে তিস্তা     ঢাকাবাসীর জন্য ‘ডিজিটাল হাট’ চালু হচ্ছে শনিবার     সাহারা খাতুনের লাশ আসছে রাতে, শনিবার বনানীতে দাফন     নেপালে ভয়াবহ ভূমিধস, নিহত ১০     দেশবাসীকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার অনুরোধ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর     করোনায় ফরিদপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান লোকমানের মৃত্যু     দেশে করোনায় আরও ৩৭ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ২৯৪৯     পাকিস্তান এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা    

তৃণমূল ফুটবলের শুভেচ্ছাদূত হলেন জামাল-সাবিনা

  জুন ২৮, ২০২০     ৩৯     ২১:৪৫     ক্রীড়া
--

উত্তরণবার্তা ক্রীড়া ডেস্ক : এশিয়ান ফুটবল দেশগুলোর মানোন্নয়নে এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশন (এএফসি) গ্রাসরুট চার্টারের কার্যক্রম চালাচ্ছে। ইতিমধ্যে এশিয়ার ২৮টি দেশ এই গ্রাসরুট কার্যক্রমে অন্তর্ভূক্ত হয়েছে। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনও (বাফুফে) এএফসির নেয়া গ্রাসরুট চার্টারে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার উদ্যোগ নিতে যাচ্ছে। চলতি বছরের ডিসেম্বরে এএফসি বরাবর আবেদনের পরিকল্পনাও করছে সংস্থাটি।

আর এর আগের কার্যক্রম হিসেবে বাফুফে দেশের তৃণমূল ফুটবলের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে বেছে নিয়েছে পুরুষ ও মহিলা ‍দুই বিভাগের জাতীয় দলের অধিনায়ক জামাল ভূইয়া ও সাবিনা খাতুনকে।

এক ভিডিও বার্তায় রোববার বাফুফে সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ বিষয়টি নিশ্চিত করেন। একইসঙ্গে এএফসির গ্রাসরুটের ব্রোঞ্জ, সিলভার ও গোল্ডের মধ্যে মধ্যে ব্রোঞ্জ ক্যাটাগরিতে অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন তিনি।

এএফসির গ্রাসরুট চার্টারের ব্রোঞ্জ গ্রুপে অন্তর্ভূক্ত হতে চাওয়া নিয়ে এই সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এএফসির গ্রাসরুট চার্টারের তিনটি ক্যাটাগরি রয়েছে-ব্রোঞ্জ, সিলভার ও গোল্ড। ইতোমধ্যে এশিয়ার ২৮টি দেশ এই চার্টারে অংশগ্রহণ করেছে বা অংশগ্রহণ করার জন্য কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। আমরাও এ বছরের শেষের দিকে ডিসেম্বরে এএফসির কাছে আবেদন করব, যেন আমরা ব্রোঞ্জ ক্যাটাগরিতে অন্তর্ভুক্ত হতে পারি। এর আওতায় আমরা তৃণমূলে কিছু কাজ সম্পাদন করতে চাই।’

আর সেই কার্যক্রমের শুরুতে জামাল ও সাবিনাকে শুভেচ্ছাদূত করেছেন জানিয়ে আরও যোগ করেন, ‘এজন্য দুজন শুভেচ্ছাদূত কাজ করবে আমাদের সঙ্গে। তারা হলেন জামাল ভূইয়া ও সাবিনা খাতুন। তারা দুজনেই সম্মতি দিয়েছেন। তাদের মূল কাজ হবে আমরা যে চারটি অঞ্চল বাছাই করেছি-ঢাকা, ফেনী, নীলফামারী ও মাদারীপুর-এই চারটি জোনে যাবেন এবং তাদেরকে তৃণমূল ফুটবল সম্পর্কে জানাবেন, উদ্বুদ্ধ করবেন। যেন স্থানীয়রা তৃণমূল পর্যায়ে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন, কীভাবে গ্রাসরুটের উন্নতি করে জাতীয় দলের উন্নয়ন করা যায়-সেগুলোর বিষয়ে খোঁজ নিবেন।’

এদিকে বাফুফের মাধ্যমে পাঠানো ভিডিও বার্তায় তৃণমূল নিয়ে কাজ করার বিষয়ে বেশ আগ্রহ প্রকাশ করেন জামাল ও সাবিনা।

তরুণ প্রজন্মের ফুটবলারদের সঙ্গে কাজ করার জন্য মুখিয়ে আছেন জানিয়ে জামাল বলেন, ‘বাফুফেকে ধন্যবাদ জানাতে চাই, আমাকে তৃণমূল ফুটবলের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হওয়ার সুযোগ করে দেওয়ায়। আমি গর্বিত ও সম্মানিত বোধ করছি। বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্মের ফুটবলার নিয়ে কাজ করার জন্য মুখিয়ে আছি।’

এদিকে তৃণমূল পর্যায়ের ফুটবলের সমৃদ্ধির আশায় সাবিনা বলেন, ‘ফুটবল ফেডারেশনকে ধন্যবাদ আমাকে তৃণমূলের ফুটবলের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর করায়। ইচ্ছা থাকবে তৃণমূলের ফুটবল যেন আরও এগিয়ে যায়, এটা নিয়ে যাতে কাজ করতে পারি। তৃণমূলের ফুটবল যেন আরও সমৃদ্ধ হয়, সেই প্রত্যাশা করি।’

উত্তরণবার্তা/এআর



পুরনো খবর