বাড়ি বাড়ি প্রশ্নপত্র পাঠিয়ে প্রাথমিকের পরীক্ষার পরিকল্পনা     ‘বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আলোচনা করেই ছুটি না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে’     করোনার সংক্রমণ বাড়ায় দক্ষিণ কোরিয়ায় আবারও কড়াকড়ি     ডাকঘর সঞ্চয়ে ২০ লাখ টাকার বেশি রাখা যাবে না     শর্তসাপেক্ষে ৩১ মে থেকে ১৫ জুন অফিস ও গণপরিবহন চালু     এ পর্যন্ত ৬ কোটি মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছে সরকার     ইউনাইটেড হাসপাতালে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন     নগদ অর্থ সহায়তা কার্যক্রমে অনিয়মের ঘটনায় আরো ২ ইউপি চেয়ারম্যান ও ৩ সদস্য বরখাস্ত    

রিমান্ড শেষে ধর্ষক মাহফুজ কারাগারে

  ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০     ৫৮     ১০:৫৭     আইন-আদালত
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী ধর্ষণ ও ব্ল্যাকমেইলের ঘটনার মূলহোতা রাবি অর্থনীতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র  ধর্ষক মাহফুজুর রহমান সারদকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। দু’দিনের রিমান্ড শেষে বুধবার দুপুরে রাজশাহী মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে পাঠানো হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মতিহার থানার এসআই আবদুর রহমান জানান, মাহফুজ শেষ মুহূর্তে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে অস্বীকার করে। তবে রিমান্ডের শেষদিন মঙ্গলবার সে ঘটনা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে। তদন্তের স্বার্থে এখন তা প্রকাশ করা যাচ্ছে না। রোববার রাতে মাহফুজকে নগরীর কাজলা এলাকার একটি মেস থেকে গ্রেফতার করে মতিহার থানা পুলিশ। সোমবার তাকে দু’দিনের রিমান্ডে আনা হয়।

এদিকে ছাত্রী ধর্ষণ ও ব্লাকমেইলের প্রতিবাদে বুধবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন ও সমাবেশ হয়েছে।

এতে বিভিন্ন বিভাগের দুই শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেন। সমাবেশে তারা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রীদের যৌন হয়রানি বন্ধসহ তাদের নিরাপত্তায় ৬টি দাবি তুলে ধরেন।

মানববন্ধনে শিক্ষার্থী মেহজাবিন বলেন, ‘নারী হিসেবে, মেয়ে হিসেবে এ সমাজের একজন পুরুষকেও বিশ্বাস করতে পারছি না। এমনকি নিজের কাছের বন্ধু কিংবা স্বামীকেও না। বাসাবাড়ি, যানবাহন, কর্মস্থল এমনকি দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো জায়গাতেও নারীরা নিজেদের নিরাপদ ভাবতে পারছে না।’

অন্য শিক্ষার্থীরা বলেন, নিত্যদিন নারীদের যৌন হয়রানি আর ধর্ষণের শিকার হতে হয়। এমন ঘৃণ্য অপরাধ করেও অপরাধীরা আজ নির্দ্বিধায় পার পেয়ে যাচ্ছে।

মানববন্ধন থেকে শিক্ষার্থীরা ৬টি দাবি উত্থাপন করেন। এগুলো হল- ধর্ষক মাহফুজকে রাবি থেকে আজীবন বহিষ্কার ও সব অপরাধীর ফাঁসি নিশ্চিত করা, রাবির যৌন নিপীড়ন বিরোধী সেলের কার্যকারিতা বৃদ্ধি, আইনের ফাঁক গলিয়ে অপরাধী যাতে বের না হতে পারে সেজন্য প্রশাসনের কঠোর পদক্ষেপ নেয়া, নারীবান্ধব ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠা, ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা এবং ক্যাম্পাসে ছিনতাই প্রতিরোধে মোটরসাইকেলের স্পিড নিয়ন্ত্রণ করা।

উল্লেখ্য, ২৪ জানুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের ২য় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহফুজুর সারদ তার বান্ধবীকে (রাবি ছাত্রী) কাজলা সাঁকোপাড়া এলাকার মেসে নিয়ে ধর্ষণ ও তা ভিডিও ধারণ করে। ধর্ষণের পর ছাত্রীর কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে মাহফুজ ও তার সহযোগীরা।

টাকা না দিলে ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। এ ঘটনায় ২৭ জানুয়ারি ধর্ষণের শিকার ছাত্রী মামলা করেন। তদন্তের পর পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িত বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাফসান আহম্মেদ, জয়, জীবন ও প্লাবন তারিককে গ্রেফতার করে।

এর মধ্যে জয় ও জীবন আদালতে অপরাধ স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন। এখনও পলাতক রয়েছেন বিশাল সরকার নামের আরেক আসামি।

উত্তরণবার্তা/এআর
 



পুরনো খবর