লেখাপড়া করে মেধা অর্জন করতে হবে : রাষ্ট্রপতি     সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, টেন্ডারবাজ, ভূমিদস্যু, দুর্নীতিবাজ ও মাদক ব্যবসায়ীরা সাবধান     জিসানের মুক্তির খবর ভিত্তিহীন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী     বুয়েট আন্দোলনে শিবির-ছাত্রদল সক্রিয় : তথ্যমন্ত্রী     হাজিবিস মোকাবেলায় ২৭ হাজার সেনা, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২৩     উচ্চফলনশীল নতুন ধান উদ্ভাবন করলেন বাকৃবির ভিসি     ছেলে এবং মেয়ে শিশুর সমতা নিশ্চিতে বৈষম্যহীন অনুকূল পরিবেশ গড়ে তুলতে হবে     পুলিশের ৫৮ এএসপি পদোন্নতি পেয়ে অতিঃ পুলিশ সুপার হলেন    

‘জাতীয় শিশু-কিশোর নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব’ শুরু

  সেপ্টেম্বর ২১, ২০১৯     ২৯     ১২:১৩     আরও
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : ‘আমরা সবাই মঞ্চকুঁড়ি, নটনন্দনে ফুটবো’ স্লোগানে শুক্রবার শুরু হয়েছে ১৪তম ‘জাতীয় শিশু-কিশোর নাট্য ও সাংস্কৃতিক উৎসব’। রাজধানীর সেগুনবাগিচার জাতীয় নাট্যশালায় এ উৎসব উদ্বোধন করেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

এ সময় মন্ত্রী বলেন, শিশু-কিশোরদের সুন্দর আগামী নির্মাণের জন্যই সংস্কৃতিকে পৃষ্ঠপোষকতা করতে হবে। এ ধরনের উৎসব আয়োজনের মধ্য দিয়ে শিশুরা নিজস্ব সংস্কৃতির প্রতি আরও বেশি দায়বোধ অনুভব করবে।

এর আগে বিকাল সোয়া ৫টায় মিলনায়তনের সামনের উন্মুক্ত লবিতে বেলুন উড়িয়ে উৎসবের সূচনা করেন মন্ত্রী। একই সময়ে উন্মুক্ত মঞ্চে শিশুদের নিয়ে ছবি আঁকেন শিল্পী মুস্তাফা মনোয়ার।

শিশুরা গেয়ে শোনায় উৎসব সঙ্গীত। পরে মিলনায়তনের ভেতরে জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে শুরু হয় আলোচনা পর্ব।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ বলেন, ‘সারা দেশের সব উপজেলায় সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে।

এ বছরের মধ্যেই অন্তত ১০০টি উপজেলায় সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণের কাজ শেষ করা হবে। এসব কেন্দ্রে অত্যাধুনিক মিলনায়তনের পাশাপাশি মহড়া কক্ষসহ সব রকম সুযোগ-সুবিধা থাকবে।’

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও পিপলস থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশনের যৌথভাবে আয়োজিত এ উৎসব চলবে ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

উৎসবে ৯৫টি শিশু নাট্যদল অংশ নিচ্ছে। নাটক মঞ্চায়নের পাশাপাশি ৮টি ভেন্যুতে প্রতিদিন ৮৫টি পরিবেশনা অনুষ্ঠিত হবে। এই আয়োজনে ৪০০ শিশু-কিশোরকে ‘মঞ্চকুঁড়ি তনয় শিশু পদক’ দেয়া হবে।

পাশাপাশি পদক দেয়া হবে উৎসবে অংশ নেয়া বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন প্রতিটি শিশুকে। শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন মুস্তাফা মনোয়ার এবং গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সেক্রেটারি জেনারেল কামাল বায়েজিদ।

মুস্তাফা মনোয়ার বলেন, ‘আমাদের শিশুরা যেন এখন বইয়ের ব্যাগ বইতে বইতে কুঁজো হয়ে যাচ্ছে। এটা যেন না হয়। শিশুরা যেন মনের আনন্দে নিজেদের প্রতিভার বিকাশ ঘটায়।

এজন্য সাংস্কৃতিক কর্মাকাণ্ডে যুক্ত হতে হবে।’ এ উৎসবের সমাপনী দিনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উদযাপন করা হবে বলে জানান লিয়াকত আলী লাকী।

এছাড়া নাটকের প্রদর্শনীর পাশাপাশি সঙ্গীত, পুতুল নাচ, নৃত্যসহ নানা রকম সাংস্কৃতিক আয়োজন থাকবে উৎসবজুড়ে। সারা দেশ থেকে ১০ হাজারের মতো শিশু-কিশোর অংশ নেবে এ উৎসবে।

উত্তরণবার্তা/এআর



পুরনো খবর