এসএসসিতে পাসের হার ৮২.৮৭ শতাংশ     এসএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ     এসএসসির ফল জানা যাবে যেভাবে     জি-৭ শীর্ষ সম্মেলন স্থগিত করলেন ট্রাম্প     ২ মাস পর চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ‘বনলতা’     সঞ্চয় স্কিম: নতুন বিধি-নিষেধ বিনিয়োগকারীদের উৎসাহিত করবে     শিমুলিয়া-কাঁঠালবাড়ি নৌরুটে লঞ্চ ও সিবোট চলাচল শুরু     বিমান যাত্রীদের সুরক্ষায় সব ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে    

পুতুলের নৌকা, দুর্যোগে বাঁচাবে প্রাণ

  সেপ্টেম্বর ১৬, ২০১৯     ১০৮     ১২:২৪     জাতীয় সংবাদ
--

উত্তরণবার্তা ডেস্ক : বন্যাকবলিত মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে একটি রেস্কিউ বোটের (নৌকা) ডিজাইন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল। তাঁর প্রস্তাবকে সামনে রেখে একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়।

কার্যকর নতুন এ প্রকল্পের নাম দেয়া হয়েছে দুর্যোগ মোকাবেলায় মাল্টিপারপাস এক্সিসাবল রেস্কিউ বোট।

এ প্রকল্পের আলোকে দুর্যোগ মোকাবেলায় ভিন্ন ধরনের রেস্কিউ বোট বা নৌকা তৈরি করা হবে। এ নৌকায় বন্যাকবলিত জনগণ তাদের মালামাল, এমনকি ঘর পর্যন্ত অন্য জায়গায় সরিয়ে নিতে পারবেন। দূর্গত এলাকার মানুষ তাদের ঘর-বাড়ি রক্ষা করতে না পারলে তা ভেঙ্গে নৌকায় করে নিরাপদে সরিয়ে নিতে পারবেন। গৃহপালিত পশু-পাখিও বহন করা যাবে বিশেষ এই নৌকায়।

প্রতিটি বোট তৈরির বাজেট ধরা হয়েছে ৪৫ লাখ টাকা। বাংলাদেশ নৌ বাহিনীর সহযোগিতায় এ বোট নির্মাণ করবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। চলতি বছরেই শুরু হচ্ছে নতুন এ প্রকল্পের কাজ। বছরে  ২০টি করে আগামী তিন বছরে মোট ৬০টি বোট নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে ভবিষ‌্যতে যদি এ ধরণের বিশেষ নৌকার আরো প্রয়োজন হয় তাহলে এই সংখ‌্যা বাড়ানো হবে।

বিশেষ ধরণের এই নৌকার প্রতিটিতে ১০০ থেকে ১৫০জন করে বন্যাকবলিত মানুষকে উদ্ধার/বহন করা যাবে মালামালসহ। প্রাথমিক পর্যায়ে ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, চুয়াডাংগা, ঝিনাইদহ, খুলনা, কুষ্টিয়া, মাগুরা, মেহেরপুর, নড়াইল, সাতক্ষীরা, রাজশাহী, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, বগুড়া, রাজশাহী, নাটোর, জয়পুরহাট, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নেত্রকোনা, নীলফামারী, রাজবাড়ী, শরীয়তপুর, সিরাজগঞ্জ, সুনামগঞ্জ এলাকায় দেয়া হবে রেস্কিউ বোটগুলো।

এ বিষয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শাহ কামাল বলেন, প্রথমে বন্যাপ্রবণ জেলায় এ নৌকা সরবরাহ করা হবে। প্রাথমিকভাবে প্রতি জেলায় একটি করে নৌকা দেয়া হবে। নৌকার পূর্ণাঙ্গ ডিজাইন তৈরি হচ্ছে, ইঞ্জিন চালিত বড় আকারের এ নৌকায় বন‌্যা কবলিত এলাকার মানুষদের দ্রুত নিরাপদে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হবে। সবচেয়ে বড় কথা একসঙ্গে অনেক মানুষকে এ নৌকার মাধ‌্যমে সাহায‌্য করা যাবে।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান বলেন, ঘরসহ বন্যা কবলিত মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নিতে নৌকার ডিজাইন দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল। তাঁর প্রস্তাবকে সামনে রেখে একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এ নৌকায় বন্যা কবলিত জনগণ তাদের মালামাল, এমনকি ঘর পর্যন্ত অন্য জায়গায় সরিয়ে নিতে পারবেন। আমরা এ বিষয়ে একটি প্রকল্প গ্রহণ করেছি।

উত্তরণবার্তা/এআর

 



পুরনো খবর