এবারও জানুয়ারিতে তীব্র শৈত্যপ্রবাহ!     দীর্ঘদিন পর খুলতে যাচ্ছে আমিরাতের শ্রমবাজার     চার বছরে দুর্নীতির ২০ কোটি টাকা জব্দ     শুদ্ধি অভিযান সারা দেশে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে : আইজিপি     শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তাক লাগানো উন্নয়ন চলছে : এলজিআরডি মন্ত্রী     দেশের সব হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টা ডেলিভারি সুবিধা দেয়া হবে     হলি আর্টিজান জঙ্গি হামলার রায় ২৭ নভেম্বর     শ্রীলঙ্কার নতুন প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে    

বেতনের চেয়ে বিজ্ঞাপনে আয় ২০ গুণ বেশি

  সেপ্টেম্বর ০২, ২০১৯     ১৫৬     ২৩:৩৬     ক্রীড়া
--

উত্তরণবার্তা ক্রীড়া ডেস্ক : বর্তমান সময়ে যেকোনো খেলাধুলায় ব্র্যান্ডভ্যালুর মূল্য বেড়ে গেছে বহুগুণে। সেটা ঠিক কতোটা বেশি?- তা জানলে যে কারো চোখ উঠে যাবে কপালে। কেননা একজন ক্রিকেটারের বেতনের ২০ গুণ বেশি যদি হয় তার ব্র্যান্ডভ্যালু, তা হলে তা চমকে দেয়ার মতোই যে খবর।
আর ঠিক এমনটাই ঘটেছে ভারতের ক্রিকেটারদের ক্ষেত্রে। দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলি, সাবেক অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি কিংবা হার্দিক পান্ডিয়া, রোহিত শর্মারা শুধু নানান প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন করে এবং শুভেচ্ছাদূত হিসেবে কাজ করেই আয় করেন তাদের বেতনের চেয়ে প্রায় ২০ গুণ বেশি অর্থ।
ভারতের বর্তমান অধিনায়ক কোহলির বোর্ড থেকে প্রাপ্ত মোট বেতন হলো ৭ কোটি রুপি। কিন্তু নানান ব্র্যান্ডের বিজ্ঞাপন ও শুভেচ্ছাদূত হিসেবে চুক্তিবদ্ধ থাকায় তার আয় গিয়ে দাঁড়ায় ১৪৬ কোটি রুপিতে। যা কি-না তার বেতনের প্রায় ২১ গুণ।
ফোর্বসের সর্বোচ্চ আয় করা ক্রীড়াবিদদের মধ্যে একমাত্র ক্রিকেটার হিসেবে রয়েছেন কোহলি। পুমা, এমআরএফ টায়ার, অডির মতো প্রতিষ্ঠানের অ্যাম্বাসেডর হিসেবে চুক্তিবদ্ধ রয়েছেন তিনি। এছাড়া দেশের মধ্যে নানান বিজ্ঞাপনী সংস্থায়ও রয়েছেন তিনি।
অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেয়ার পর মহেন্দ্র সিং ধোনির বোর্ড থেকে প্রাপ্ত বর্তমান পারিশ্রমিক ৫ কোটি রুপি। কিন্তু নিজের ব্র্যান্ডভ্যালু থেকেই ধোনির আয় হয় প্রায় ১২০ কোটি রুপি। যা তার বেতনের প্রায় ২৪ গুণ।
২০১৪ সালে বিশ্বের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ফোর্বসের সর্বোচ্চ আয় করা ক্রীড়াবিদদের মধ্যে ২৫ জনের সংক্ষিপ্ত তালিকায় জায়গা পেয়েছিলেন ধোনি। রিবক, পেপসিকো, স্পার্তানের মতো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে জড়িত রয়েছেন তিনি।
ভারতের ক্রিকেটারদের মধ্যে ব্র্যান্ডভ্যালু দিয়ে বেতনের চেয়ে বেশি আয় করা পরের ক্রিকেটার হলেন হার্দিক পান্ডিয়া। তবে কোহলি-ধোনির মতো তার আয় ২০ গুণ বেশি নয়। বোর্ড থেকে তিনি পারিশ্রমিক হিসেবে পান ৩ কোটি রুপি আর তার ব্র্যান্ডভ্যালু প্রায় ১৪ কোটি রুপি। তিনি শুধুমাত্র বিজ্ঞাপনী কাজ করেই এ অর্থ আয় করেন।
কোহলি, ধোনি বা হার্দিকের মতো অতো ব্র্যান্ডভ্যালু নেই রোহিত শর্মার। তবু নিজের বেতনের চেয়ে বেশি আয় হয় তার। বোর্ড থেকে তাকে বেতন হিসেবে দেয়া হয় ৭ কোটি রুপি। অন্যদিকে এডিডাস, হাবলট, এরিস্টোক্র্যাটের মতো প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনী কাজে অংশ নিয়ে তিনি আয় করে থাকেন প্রায় ৭ কোটি ২০ লাখ রুপি।
কম যান না রোহিতের উদ্বোধনী সঙ্গী শিখর ধাওয়ানও। বোর্ড থেকে প্রাপ্ত বেতন ৫ কোটি হলেও, নানান বিজ্ঞাপনী কাজের মাধ্যমে তার আয় হয় প্রায় ৫ কোটি ২০ লাখ রুপি। তিনি কাজ করে থাকেন জিএস ক্যালটেক্স, বোট, অ্যালসিস স্পোর্টসের মতো প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে।
উত্তরণবার্তা/অআ



পুরনো খবর