প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘ অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্ক যাচ্ছেন আজ     নিয়মরক্ষার ম্যাচে আফগানদের বিপক্ষে কাল জিততে চায় জিম্বাবুয়ে     হাওয়া ভবন করে দুর্নীতি-কমিশন বাণিজ্যকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিল বিএনপি- তথ্যমন্ত্রী     জানি, কাজটা কঠিন, বাধা আসবেই, তবু করব: প্রধানমন্ত্রী     বনানী এফআর টাওয়ারের পেছনে আগুন     পাসপোর্টের নতুন ডিজি মেজর জেনারেল সাকিল     কাজের মান বুঝে বিল পরিশোধ : স্বাস্থ্যমন্ত্রী     আফগানিস্তানে গাড়ি বোমা হামলায় ১০ জন নিহত    

‘বাবা বললেন, বঙ্গবন্ধুর বিপদ, আমাকে যেতেই হবে’ : কঙ্কা

  আগস্ট ২৫, ২০১৯     ৮৫     ৭:০৩ অপরাহ্ণ     আরও
--

উত্তরণবার্তা প্রতিবেদক : ‘বাবা বললেন, বঙ্গবন্ধুর বিপদ, আমাকে যেতেই হবে’।
১৯৭৫ সালেন ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর সাথে শহীদ তৎকালিন রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব কর্নেল জামিল আহমেদের কন্যা বেগম আফরোজা জামিল কঙ্কা জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আজ রোববার সকালে রাজধানীতে আয়োজিত এক আলোচনা সভা ও দোয়া মহাফিলে বক্তৃতাকালে এ কথা বলেন।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাৎবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের নিয়ন্ত্রণাধীন প্রতিষ্ঠান ‘বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ’ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ‘আইসিটি টাওয়ার’ অডিটোরিয়ামে ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ হবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা’ শীর্ষক এ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন,তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। আর কঙ্কা ছিলেন প্রধান বক্তা।
আইসিটি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলম এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।
বিশেষ অতিথি ছিলেন,ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ. কে. এম. রহমতুল¬াহ, ও সাবেক সচিব ও বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের কিউরেটর নজরুল ইসলাম খান।
বেগম আফরোজা জামিল কঙ্কা বলেন, দেশের মানুষের প্রতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ছিলো অপার আস্থা। তার ডাকে সাড়া দিয়ে সবাই স্বতস্ফুর্তভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলো।
তিনি বলেন,‘’৭৫’র ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুর ওপর হামলার খবরে যখন তৎকালিন সেনাপ্রধানসহ প্রভাবশালী অনেক কর্মকর্তা খেই হারিয়ে ফেলেন, তখন নিজের কর্তব্যের ডাকে বঙ্গবন্ধুকে বাঁচাতে ছুটে যান তৎকালীন রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব আমার বাবা কর্নেল জামিল আহমেদ। বাবা সিভিল ড্রেসেই বঙ্গবন্ধুর বাসভবনের দিকে রওনা হন। মা একটু ইতস্তত করছিলেন। বাবা বললেন, বঙ্গবন্ধুর বিপদ, আমাকে যেতেই হবে।’
বাবা সেদিন যেতে পারেননি উল্লেখ করে কঙ্কা বলেন,৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর বাসভবনে পৌঁছানোর আগেই সোবহানবাগ মসজিদের কাছে বাবাকে গুলি করে হত্যা করা হয়।
প্রধান অতিথি পলক বলেন,বঙ্গবন্ধু কোনো নির্দিষ্ট দল, গোষ্ঠী বা দেশের নন, তিনি ছিলেন বিশ্বের অবিসংবাদিত নেতা।
আজ বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।
এতে বলা হয়, ’৭৫’র ১৫ ও ২০০৪ সালের ২১ আগস্টের শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ (এক) মিনিট নীরবতা পালনের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করা হয়।
এরপরই স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (সচিব) হোসনে আরা বেগম।

উত্তরণবার্তা/দীন



মা হতে চান প্রিয়াঙ্কা

  সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯

পুরনো খবর